পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন ১৩ পঞ্চক। চলে না ভাই, আচার্যদেবের কাছে যাই—ৰ্তাকে জিজ্ঞাসা করলেই— জয়োত্তম । আবার ! ফের ! পঞ্চক। ঘুণ ঘুর্ণ ঘূণাপয় ঘুণাপয়— জয়োত্তম । আমার তো উনিশ বছর বয়স হল—এর মধ্যে একবারও আমাদের গুরু এ আয়তনে আসেননি। আজ তিনি হঠাৎ আসতে যাবেন এটা বিশ্বাস করতে পারিনে । সঞ্জীব । তোমার তর্কট কেমনতরো হল হে, জয়োত্তম ? উনিশ বছর আসেননি বলে বিশ বছরে আসাটা অসম্ভব হল কোন যুক্তিতে ? বিশ্বম্ভর । তাহলে অঙ্কশাস্ত্রটাই অপ্রমাণ হয়ে যায় ! তবে তো উনিশ পর্যন্ত বিশ নেই বলে উনিশের পরেও বিশ থাকতে পারে না । সঞ্জীব। শুধু অঙ্ক কেন, বিশ্বব্রহ্মাণ্ডটাও টেকে না। কারণ য এ-মুহূর্তে ঘটেনি তা ও-মুহূর্তে ই বা ঘটে কী করে ? জয়োত্তম । আরে। ওইটেই তো আমার তর্ক। কে বললে ঘটে ? যা পূর্বে ঘটেনি তা কিছুতেই পরে ঘটতে পারে না। আচ্ছা, এসো, কিছু যে ঘটে সেইটে প্রমাণ করে দাও । পঞ্চক । ( জয়োত্তমের কাধে চড়িয়া ) প্রমাণ ? এই দেখো প্রমাণ । ঘুর্ণ ঘূৰ্ণ ঘূণাপয় ঘূণাপয়— জয়োত্তম । আঃ পঞ্চক ! কর কী । নাবো বলছি। আ: নাবো । পঞ্চক । আমি যে তোমার কাধে চড়েছি সেটা প্রমাণ না করে দিলে আমি কিছুতেই নাবছিনে। ঘুণ ঘূৰ্ণ ঘূণাপয় ঘুণাপয়—