পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন ○ぶ) খেসারিডাল যদি গোফের উপর পর্যন্ত এগিয়ে আসে তাহলে তাকে আরও একটু এগিয়ে নিই। পঞ্চক । আচ্ছা, একটা কথা জিজ্ঞাসা করি, সত্যি করে বলিস—তোরা কি লোহার কাজ করে থাকিস । প্রথম শোণপাংশু। লোহার কাজ করি বই কি, খুব করি। পঞ্চক। রাম রাম ! আমরা সনাতন কাল থেকে কেবল তামাপিতলের কাজ করে আসছি। লোহা গলাতে পারি কিন্তু সব দিন নয় । ষষ্ঠীর দিনে যদি মঙ্গলবার পড়ে তবেই স্নান করে আমরা হাপর ছুতে পারি কিন্তু তাই বলে লোহা পিটোনো সে তো হতেই পারে না। তৃতীয় শোণপাংশু। আমরা লোহার কাজ করি তাই লোহাও আমাদের কাজ করে । গান কঠিন লোহা কঠিন ঘুমে ছিল অচেতন ও তার ঘুম ভাঙাইমু রে । লক্ষযুগের অন্ধকারে ছিল সংগোপন ওগো তায় জাগাইমু রে । পোষ মেনেছে হাতের তলে যা বলাই সে তেমনি বলে, দীর্ঘ দিনের মৌন তাহার আজ ভাগাইচু রে । অচল ছিল সচল হয়ে ছুটেছে ঐ জগংজয়ে, নিৰ্ভয়ে আজ দুই হাতে তার রাশ বাগাইলু রে । পঞ্চক । সেদিন উপাধ্যায়মশায় একঘর ছাত্রের সামনে বললেন শোণপাংশু জাতটা এমনই বিশ্রী যে তারা নিজের হাতে লোহার কাজ করে।