পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন 8> দেওয়ালে তিনবার সাদা ছাগলের দাড়ি বুলিয়ে দিয়ে আওড়াতে হয় "হুন হুন তিষ্ঠ তিষ্ঠ বন্ধ বন্ধ অমুতে হু ফট স্বাহ৷” এর কারণটা কী—তাহলে কেবলমাত্র চারটে স্বপুরি আর এক মাষ সোন হাতে করে যাও তখনই মহাপঞ্চকদাদার কাছে, এমনি উত্তরটি পাবে যে অণর কথা সরবে না। হয় সেটা মানে, নয় কানমলা থেয়ে বেরিয়ে যাও, মাঝে অন্য রাস্তা নেই । তাই সমস্তই চমৎকার সহজ হয়ে গেছে। কিন্তু ঠাকুর সেখান থেকে বের করে তুমি আমাকে এই যে-জায়গাটাতে এনেছ এখানে কোনো মহাপঞ্চকদাদার টিকি দেখবার জো নেই—বাধ জবাব পাই কার কাছে। সব কথারই বারে আন বাকি থেকে যায়। তুমি এমন করে মনটাকে উতলা করে দিলে-—তার পর ? দাদাঠাকুর । তার পরে ? গান যা হবার তা হবে । যে আমাকে র্কাদায় সে কি আমনি ছেড়ে রবে । পথ হতে যে ভুলিয়ে আনে, পথ যে কোথায় সেই তা জানে, ঘর যে ছাড়ায় হাত সে বাড়ায় সেই তো ঘরে লবে । পঞ্চক। এতবড়ো ভরসা তুমি কেমন করে দিচ্ছ ঠাকুর । তুমি কোনো ভয় কোনো ভাবনাই রাখতে দেবে না অথচ জন্মাবধি আমাদের ভয়ের অন্ত নেই। মৃত্যু-ভয়ের জন্যে অমিতাযুদ্ধারিণী মন্ত্র পড়ছি, শত্রুভয়ের জন্যে মহাসাহস্রপ্রমদিনী, ঘরের ভয়ের জন্তে গৃহমাতৃকা, বাইরের ভয়ের জন্যে অভয়ংকরী ; সাপের ভয়ের জন্যে মহাময়ূরী, বজ্রভয়ের জন্যে 8