পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন や> সঞ্জীব । আরে রাখে। তোমার তর্ক। অনিষ্ট হতে সময় লাগে না । মরার পক্ষে এক মুহূর্ত ই যথেষ্ট । অধ্যেতার প্রবেশ উপাধ্যায়। কী গে৷ অধ্যেতা, ব্যাপার কী। অধ্যেতা । তোমরা তো আমাকে বলে এলে সুভদ্রকে মহাতামসে বসাতে—কিন্তু বসায় করি সাধ্য। মহাপঞ্চক । কেন কী বিঘ্ন ঘটেছে । অধ্যেতা। মৃতিমান বিঘ্ন রয়েছে তোমার ভাই ! মহাপঞ্চক। পঞ্চক ? অধ্যেতা। ই । আমি স্থভদ্রকে হিঙ্গুমৰ্দন কুণ্ডে স্নান করিয়ে সবে উঠেছি এমন সময় পঞ্চক এসে তাকে কেড়ে নিয়ে গেল । মহাপঞ্চক । না, এই নরাধমকে নিয়ে আর চলল না। অনেক সহ করেছি। এবার ওকে নির্বাসন দেওয়াই স্থির। কিন্তু অধ্যেতা, তুমি এটা সহ্য করলে ? অধ্যেতা । আমি কি তোমার পঞ্চককে ভয় করি । স্বয়ং আচার্য অদীনপুণ্য এসে তাকে আদেশ করলেন তাই তো সে সাহস পেলে । তৃণাঞ্জন। আচার্য অদীনপুণ্য ! সঞ্জীব। স্বয়ং আমাদের আচার্য! বিশ্বম্ভর । ক্রমে এ-সব হচ্ছে কী । এতদিন এই আয়তনে আছি কখনো তো এমন অনাচারের কথা শুনিনি । যে স্নাত তাকে তার ব্রত থেকে ছিন্ন করে আনা । আর স্বয়ং আমাদের আচার্যের এই কীর্তি ! জয়োত্তম । তাকে একবার জিজ্ঞাসা করেই দেখা যাক না । বিশ্বম্ভর । না না, আচার্যকে আমরা—