পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন \უ(ჯ আচার্য। গায়ের জোরে দেবতা গড়বার পাপে আমাকে লিপ্ত ক’রে না। সে মানুষ, সে শিশু, সেইজন্যেই সে দেবতাদের প্রিয়। তৃণাঞ্জন । দেখুন আপনি আমাদের আচার্য, আমাদের প্রণম্য, কিন্তু. যে-অন্যায় আজ করছেন, তাতে আমরা বলপ্রযোগ করতে বাধ্য হব। আচার্য। করে, বলপ্রয়োগ করে, আমাকে মেনে না, আমাকে মারো, আমি অপমানেরই যোগ্য, তো মাদের হাত দিয়ে আমার যে-শাস্তি আরম্ভ হল তাতেই বুঝতে পারছি গুরুর আবির্ভাব হয়েছে। কিন্তু সেইজন্যেই বলছি শাস্তির কারণ আর বাড়তে দেব না। স্বভদ্রকে তোমাদের হাতে দিতে পারব না। তৃণাঞ্জন । পারবেন না ? আচার্য । না । মহাপঞ্চক। তাহলে আর দ্বিধা করা নয়। তৃণাঞ্জন, এখন তোমাদের উচিত ওঁকে জোর করে ধরে নিয়ে ঘরে বন্ধ করা । ভীরু, কেউ সাহস করছ না ? অামাকেই তবে এ কাজ করতে হবে ? জয়োত্তম । খবরদার—আচার্যদেবের গায়ে হাত দিতে পারবে না । বিশ্বম্ভব । না না, মহাপঞ্চক, ওঁকে অপমান করলে আমরা সইতে পারব না । সঞ্জীব । আমরা সকলে মিলে পায়ে ধরে ওঁকে রাজি করাব । এক সুভদ্রের প্রতি দয়া করে উনি কি আমাদের সকলের অমঙ্গল ঘটাবেন ? তৃণাঞ্জন। এই আচলায়তনের এমন কত শিশু উপবাসে প্রাণত্যাগ করেছে—তাতে ক্ষতি কী হয়েছে । সুভদ্রের প্রবেশ সুভদ্র । আমাকে মহাতামস ব্রত করাও ! পঞ্চক। সর্বনাশ করলে ! ঘুমিয়ে পড়েছে দেখে আমি এখানে (t