পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\Jტ অচলায়তন এসেছিলুম কখন জেগে উঠে চলে এসেছে। আচার্য । বৎস সুভদ্র, এসো আমার কোলে । যাকে পাপ বলে ভয় . করছ সে পাপ আমার—আমিই প্রায়শ্চিত্ত করব । তৃণাঞ্জন। না না, আয় রে আয় স্বভদ্র, তুই মানুষ না, তুই দেবতা । সঞ্জীব। তুই ধন্য। বিশ্বম্ভর । তোর বয়সে মহতামস করা আর-কারও ভাগ্যে ঘটেনি। সার্থক তোর মা তোকে গর্ভে ধারণ করেছিল । উপাধ্যায়। আহা স্বভদ্র, তুই আমাদের অচলায়তনেরই বালক বটে। মহাপঞ্চক। আচার্য, এখনও কি তুমি জোর করে এই বালককে এই মহাপুণ্য থেকে বঞ্চিত করতে চাচ্ছ ? আচার্য । হায় হায়, এই দেখেই তো আমার হৃদয় বিদীর্ণ হয়ে যাচ্ছে । তোমরা যদি ওকে কঁাদিয়ে আমার হাত থেকে ছিড়ে কেড়ে নিয়ে যেতে তাহলেও আমার এত বেদনাহত না । কিন্তু দেখছি হাজার বছরের নিষ্ঠুর বাহু অতটুকু শিশুর মনকেও পাথরের মুঠোয় চেপে ধরেছে একেবারে পাচ আণ্ডলের দাগ বসিয়ে দিয়েছে রে । কখন সময় পেল সে ? সে কি গর্ভের মধ্যেও কাজ করে ? পঞ্চক । সুভদ্র, আয় ভাই, প্রায়শ্চিত্ত করতে যাই—আমিও যাব তোর সঙ্গে । আচার্য । বৎস, আমিও যাব। সুভদ্র । না না, আমাকে যে একলা থাকতে হবে—লোক থাকলে যে পাপ হবে ! মহাপঞ্চক। ধন্য শিশু, তুমি তোমার ওই প্রাচীন আচার্যকে আজ শিক্ষা দিলে। এসো তুমি আমার সঙ্গে ।