পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


b-b’ অচলায়তন এই দুঃখমুখের জীবন মোদের তারি খেলার অঙ্গী । ওরে ডাকেন তিনি যবে র্তার জলদমন্দ্র রবে, ਖੂੰ পথের কাটা পায়ে দলে সাগরগিরি লঙ্ঘি । মহাপঞ্চক । আমি এই আয়তনের আচার্য—আমি তোমাকে আদেশ করছি তুমি এখন ওই স্লেচ্ছদলকে সঙ্গে নিয়ে বাহির হয়ে যাও। দাদাঠাকুর । আমি যাকে আচার্য নিযুক্ত করব সেই আচার্য ; আমি যা আদেশ করব সেই আদেশ । মহাপঞ্চক । উপাধ্যায, আমরা এমন করে দাড়িয়ে থাকলে চলবে না | এসো আমরা এদের এখান থেকে বাহির করে দিয়ে আমাদের আয়তনের সমস্ত দরজাগুলো আবার একবার দ্বিগুণ দৃঢ় করে বন্ধ করি। উপাধ্যায়। এরাই আমাদের বাহির করে দেবে, সেই সম্ভাবনাটাই প্রবল বলে বোধ হচ্ছে । প্রথম শোণপাংশু । অচলায়তনের দরজার কথা বলছ—সে আমরা আকাশের সঙ্গে দিব্যি সমান করে দিয়েছি । উপাধ্যায়। বেশ করেছ ভাই । আমাদের ভারি অসুবিধা হচ্ছিল । এত তালা-চাবির ভাবনাও ভাবতে হত । মহাপঞ্চক । পাথরের প্রাচীর তোমরা ভাঙতে পার, লোহার দরজা তোমরা খুলতে পার, কিন্তু আমি আমার ইন্দ্রিয়ের সমস্ত দ্বার রোধ করে এই বসলুম—যদি প্রায়োপবেশনে মরি তবু তোমাদের হাওয়া তোমাদের আলো লেশমাত্র আমাকে স্পশ করতে দেব না ।