পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


39२ অচলায়তন দর্ভকদলের প্রবেশ পঞ্চক। কী ভাই, তোরা এত ব্যস্ত কিসের ? প্রথম দৰ্ভক শুনছি অচলায়তনে কারা সব লড়াই করতে এসেছে । আচার্য । লড়াই কিসের ? আজ তো গুরু আসবার কথা । দ্বিতীয় দৰ্ভক। না না, লড়াই হচ্ছে খবর পেয়েছি । সমস্ত ভেঙেচুরে একাকার করে দিলে যে । তৃতীয় দৰ্ভক । বাবাঠাকুর, তোমরা যদি হুকুম কর আমরা যাই ঠেকাই গিয়ে । আচার্য । ওখানে তো লোক ঢের আছে তোমাদের ভয় নেই বাবা । প্রথম দৰ্ভক। লোক তো আছে কিন্তু তারা লড়াই করতে পারবে কেন ? দ্বিতীয় দৰ্ভক। শুনেছি কতরকম মন্ত্রলেখা তাগাতাবিজ দিয়ে তার দুখান৷ হাত আগাগোড় কষে বেঁধে রেখেছে । খোলে না, পাছে কাজ করতে গেলেই তাদের হাতের গুণ নষ্ট হয় । পঞ্চক আচার্যদেব, এদের সংবাদটা সত্যই হবে । কাল সমস্ত রাত মনে হচ্ছিল চারিদিকে বিশ্বব্রহ্মাও যেন ভেঙেচুরে পড়ছে। ঘুমের ঘোরে ভাবছিলুম স্বপ্ন বুঝি। আচার্য। তবে কি গুরু আসেননি ? পঞ্চক। হয়তো বা দাদা ভুল করে আমার গুরুরই সঙ্গে লড়াই বাধিয়ে বুসেছেন! আটক নেই। রাত্রে তাকে হঠাৎ দেখে হয়তো যমদূত বলে ভুল করেছিলেন। I প্রথম দৰ্ভক । আমরা শুনেছি কে বলছিল গুরুও এসেছেন । আচার্য । গুরুও এসেছেন। সে কী রকম হল ?