পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন >○ পঞ্চক। তবে লড়াই করতে কারা এসেছে বল তো ? প্রথম দৰ্ভক। লোকের মুখে শুনি তাদের নাকি বলে দাদাঠাকুরের शल | পঞ্চক। দাদাঠাকুরের দল ! বল বল শুনি ঠিক বলছিস তো রে ? দ্বিতীয় দর্তক। ইঁ, সকলেই তো বলছে দাদাঠাকুরের দল । পঞ্চক । ওরে কী আনন্দ রে কী আনন্দ । আচার্য। এ কি পঞ্চক, হঠাৎ তুমি এ রকম উন্মত্ত হয়ে উঠলে কেন ? পঞ্চক। প্রভূ, আমার মনের একটা বাসনা ছিল কোনো সুযোগে যদি আমাদের দাদাঠাকুরের সঙ্গে গুরুর মিলন করিয়ে দিতে পারি, তাহলে দেখে নিই কে হারে কে জেতে । আচার্য। পঞ্চক, তোমার কথা আমি স্পষ্ট বুঝতে পারছিনে। তুমি দাদাঠাকুর বলছ কাকে ? পঞ্চক । আচার্যদেব, ওইটে আমার গোপন কথা, অনেকদিন থেকেই মনে রেখে দিয়েছি। এখন তোমাকে বলব না প্রভু, যদি তিনি এসে থাকেন তাহলে একেবারে চোথে চোথে মিলিযে দেব । প্রথম দৰ্ভক । বাবাঠাকুর, হুকুম করে, একবার ওদের সঙ্গে লড়ে আসি—দেখিয়ে দিই এখানে মানুষ আছে । পঞ্চক । আয় না ভাই অামিও তোদের সঙ্গে চলব রে । দ্বিতীয় দৰ্তক । তুমিও লড়বে নাকি ঠাকুর ? পঞ্চক । হা, লড়ব । আচার্য। কী বলছ পঞ্চক ! তোমাকে লড়তে কে ডাকছে ? পঞ্চক । আমার প্রাণ ডাকছে। একটা কিসের মায়াতে মন জড়িয়ে রয়েছে প্রভূ। যেন কেবলই স্বপ্ন দেখছি—আর যতই জোর করছি কিছুতেই জাগতে পারছিনে। কেবল এমন বসে বসে হবে না দেব।