পাতা:অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান - মহেন্দ্রনাথ দত্ত.pdf/১৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১২৬ অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান কালে অনাহার ও অনিদ্রার মধ্যে কি কষ্টতেই না কাল কাটাইয়াছে। টাইফয়েড অসুখে ভােগ বেলুড় মঠে, একদিন বৈকালবেলা, গঙ্গার ধারের উপকার বারাণ্ডাতে আমি গিয়া দেখি যে, আহিরীটোলার একটী ভক্ত, গজা, বালুসাই ইত্যাদি মিষ্টান্ন বাড়ী হইতে তৈয়ার করিয়া আনিয়াছেন। আমি উপরে উঠিতেই ব্ৰহ্মানন্দ ব্যস্তসমস্ত হইয়া বলিল, “আরে ভাই, শীগগীর শীগগীর এই সমস্ত খেয়ে নাও, যদি না পার, তবে গঙ্গার দিকে ছুড়ে ফেলে দাও! * * * শালা বড় হাঙল, তাকে দেওয়া হবে না!” আমি মিষ্টান্ন ভালবাসি না, অনুরােধ করাতে একটু মুখে দিয়া বলিয়া উঠিলাম, “তুমি ত নােন্তাখাের লােক ; কচুরি, সিঙাড়া ছেলেবেলায় খেতে, এখন এত মিষ্টি খাচ্ছ কেন? এত ভাল নয় !” ব্রহ্মানন্দ বলিল, “কি জানি ভাই! বড় মিষ্টি খেতে ঝােক হয়েছে।” আমি বলিলাম, “এ ত ভাল নয়, শীগগীর তােমার একটা ব্যামাে হবে। কয়েকদিন পরেই ব্রহ্মানন্দ টাইফয়েড (Typhoid) রােগে আক্রান্ত হইয়া ভীষণ ভুগিয়াছিল। পরে বলরাম বাবুর বাড়ীতে চিকিৎসার জন্য যায় এবং আরােগ্যলাভ করে। নােন্তাখোর লােকেরা অধিক মিষ্টান্নদি খাইলে, উহাকে রােগাক্রান্ত হইবার লক্ষণ বলিয়া বুঝিতে হইবে।