পাতা:অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান - মহেন্দ্রনাথ দত্ত.pdf/১৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৪• অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান (Region of ideas) বলে। তদূর্ধ্ব স্তরকে ‘জ্ঞান-লােক (Region of knowledge) বলে। তাহার উপরের স্তরকে ‘আনন্দময়-লােক ( Region of bliss) বলে। সর্বোচ্চ স্তর হইল ‘অনুত্তর, সম্যক সম্বােধি’ বা ‘পূর্ণ পরজ্ঞান’এর (Region of complete and final knowledge’এর) অবস্থা। সৰ্ব্ব কেন্দ্রই—মূল কেন্দ্র সাধারণ বা স্কুল অবস্থায় সাধক মস্তিষ্কের বিষয় চিন্তা করে এবং মস্তিষ্ক আলােড়িত করিয়া নানাপ্রকার ভাবজাল বিস্তার করে। এইরূপ স্কুল অবস্থায় থাকার জন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গের স্নায়ুসকল বিভিন্ন প্রকারের হইয়া থাকে; কিন্তু মন যখন স্কুল-স্নায়ু হইতে সূক্ষ্ম-স্নায়ুতে যায়, তখন শরীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সকল ভিন্ন ভিন্ন না হইয়া একীভূত হইয়া যায়; কারণ, সূক্ষ্ম-স্নায়ু সকল সর্বত্রই সাম্যভাবে পরিস্থিত। এইজন্য, | মস্তিষ্কের ভিতর দিয়া যেরূপ চিন্তা হইয়া থাকে, হস্ত ও পদাদির ভিতর দিয়াও সেইরূপ হইয়া থাকে। স্বামিজী লণ্ডনে বক্তৃতাকালে বলিয়াছিল, 1 meditated even on the tips of my fingers” – আমি আমার নগ্রভাগগুলি দিয়াও চিন্তা করিয়াছি। সূক্ষ্ম-স্নায়ুতে যাইলে, মস্তিষ্ক বা দেহের অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মধ্যে কোন পার্থক্য থাকে না, কেবলমাত্র স্কুল অবস্থায় পার্থক্য দৃষ্ট হয়। তদূদ্ধ কার স্নায়ু