পাতা:অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান - মহেন্দ্রনাথ দত্ত.pdf/৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সম্পাদকীয় মহাপুরুষ তাপসের মনােবৃত্তি সম্বন্ধে কোন কিছু আলােচনা করা অতীব কঠিন; কারণ, তাঁহার মনের গতি সর্বদাই অন্তর্মুখী; আর, তিনি আপনার ভাব গােপন করিয়া রাখেন – নিজ সাধন-ভজন বা মনােরাজ্যের বিষয় বিশেষ কিছু প্রকাশ করিতে চাহেন না। বাহির হইতে দেখিয়া, তাহার মনের প্রকৃত অবস্থা যে কি—উহা যে কত উচ্চ, কত গভীর বা কত বিশাল, তাহা সব সময় বুঝিতে পারা যায় না; তবে, তাঁহার জীবনের দৈনন্দিন ঘটনা সমূহ - চলা-ফেরা, উঠা-বসা, কথাবার্তা ইত্যাদি, হইতে তাহার মনােবৃত্তির কিঞ্চিৎ আভাস পাওয়া যাইতে পারে। অবশ্য, সাধারণ লােকের চক্ষে তাহাও ধরা পড়ে না; যাহারা গভীর চিন্তাশীল, ধ্যানপরায়ণ এবং তীক্ষ্ণদৃষ্টিসম্পন্ন, মাত্র তাহারই এইরূপ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঘটনা সমূহ হইতে মহাপুরুষ তাপসের মনােবৃত্তি সম্বন্ধে কিছু বুঝিতে পারেন। পূজনীয় গ্রন্থকার, শ্রীযুক্ত মহেন্দ্রনাথ দত্ত মহাশয়, এই গ্রন্থে শ্রীমৎ স্বামী ব্ৰহ্মানন্দের জীবনের এইরূপ কতকগুলি ছােট-খাট ঘটনা সমাবেশ পূৰ্বক, তাহার মনােবৃত্তি বিশ্লেষণ করিয়া, একটা রেখা চিত্র আঁকিবার প্রয়াস পাইয়াছেন। শ্রদ্ধেয় গ্রন্থকার চিন্তাশীল, দার্শনিক ; অধিকন্তু, তিনি শ্রীমৎ স্বামী ব্ৰহ্মানন্দের আবাল্য অন্তরঙ্গ ; উভয়ে বাল্যে একই পারিপার্শ্বিক অবস্থার মধ্যে পরিবর্ধিত। এইজন্য, তিনি শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দের মনােবৃত্তি বিশেষভাবে পর্যবেক্ষণ করিবার সুযােগ পাইয়াছেন। বাল্যকালে - খেলাধুলা ও হাসিমার মাঝে, যৌবনকালে - মিলন ও বিয়ােগের মাঝে, সাধনকালে - ত্যাগ ও তপস্যার মাঝে, সর্বোপরি - ‘দক্ষিণেশ্বরের পরমহংস মহাশয়’এর সংস্পর্শ ও সংশয়ে, শ্রীমৎ স্বামী