পাতা:অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান - মহেন্দ্রনাথ দত্ত.pdf/৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান ৭৯ সেইজন্য, বিশেষ কোন আলাপ পরিচয় করিতেন না। হিন্দীতেই সামান্য কথাবার্তা হইত। এই সময় দেওয়ান হরিদাস বিহারীদাস কয়েকদিন অতি বিষন্নভাবে ছিলেন, কাহারও সাথে বিশেষ বাক্যালাপ করিতেন না। নরেন্দ্রনাথ তাহার বিমর্ষভাবের কারণ জিজ্ঞাসা করায়, তিনি অনিচ্ছা প্রকাশ করিয়া বলিলেন, “আপনি সাধু, আপনার এ সকল কথা শুনিয়া কি ফল হইবে ?” নরেন্দ্রনাথ অনুরােধ করায়, দেওয়ান মহাশয় আদ্যোপান্ত খুলিয়া বলিলেন, “আমাদের রাজসরকারে চাকরী করিতে হয়-বড় সব জটিল বিষয়ে থাকিতে হয়। বােম্বাই গভর্ণমেন্ট জুনাগড় দরবারকে এক পত্র লিখিয়াছেন, সেই পত্রের কি উত্তর হইতে পারে—এই বিষয় লইয়া আমি ভাবিতেছি। কারণ, আমি নবাবের কর্মচারী, আবার এদিকে বােম্বাই গভর্ণমেন্ট হইতে নিযুক্ত হইয়াছি। উভয় কুল যাহাতে রক্ষা হয়, এরূপ কোন উপায় স্থির করিতে পারিতেছি না, সেইজন্য এত বিমর্ষ।” নরেন্দ্রনাথ হরিদাস বিহারীদাসের নিকট সমস্ত বৃত্তান্ত শুনিয়া, কোন কথা না বলিয়া সম্মুখ হইতে একখানি কাগজ তুলিয়া লইল এবং আপন মনে ইংরাজীতে কি লিখিতে লাগিল। লেখ। শেষ হইলে নরেন্দ্রনাথ হরিদাস বিহারীদাসকে বলিল, “আচ্ছা, এটা কেমন হয় দেখুন দেখি ?” হরিদাস বিহারীদাস পত্রখানি পড়িয়া অতিশয় আহলাদ প্রকাশ করিয়া বলিলেন, “ঠিক এই চিঠিই ত চাহিতেছিলাম, এই চিঠিতেই কাজ হইবে।” এই বলিয়া সেই চিঠির আর কোন পরিবর্তন না করিয়া, অবিকল