পাতা:অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান - মহেন্দ্রনাথ দত্ত.pdf/৯৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৮০ অজাতশত্রু শ্রীমৎ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মহারাজের অনুধ্যান নকল করিয়া, নাম স্বাক্ষর করিয়া বােম্বাই সরকারকে পাঠাইয়া দিলেন। তাহাতে তাহার বড় উপকার হইয়াছিল। দেওয়ান হরিদাস বিহারীদাস এতদিন মনে করিতেন যে, একটা র সাধু দুটী অন্নের জন্য পড়িয়া আছে। সেই সময় হইতে তিনি জানিতে পারিলেন যে, নরেন্দ্রনাথ ইংরাজী-জানা লােক এবং একজন বাঙ্গালী। সেই হইতে দেওয়ান হরিদাস বিহারীদাস নরেন্দ্রনাথকে বিশেষ শ্রদ্ধা-ভক্তি করিতেন এবং তাহার শিষ্যস্থানীয় হইয়াছিলেন। | তাপস রাখাল গুজরাটের নানাস্থানে অনেক তপস্যা করিয়া বােম্বাইয়েতে যাইবার সময় কালীপদ ঘােষের নিকট গিয়া থাকিয়াছিল। কালীপদ ঘােষ, পরমহংস মহাশয়ের বড় ভক্ত ছিলেন এবং গিরিশবাবুর পরম বন্ধু ছিলেন। জন্ ডিকিন্সনের ( John Dickinson-এর) আফিসের তিনি কর্তা ছিলেন। তঁাহার প্রাণটা বড়ই উদার ছিল ; অকাতরে দুই হাতে দান করিতেন। তিনি লোকজনকে খাওয়াইতে বড় ভালবাসিতেন। সঙ্কোচ বা দ্বিধাভাব তাঁহার মােটেই ছিল না। তাহার নির্ভীকতা ও মুক্তহস্তে দান দেখিয়া নরেন্দ্রনাথ তাঁহাকে ‘দানাদত্যি’ ( দানব, দৈত্য) শ্রেণীর ভিতর ফেলিত। তদবধি তিনি পরমহংস মহাশয়ের ভক্তমণ্ডলীর ভিতর ‘দান-কালী বলিয়া অভিহিত হইতেন। তাপস রাখালকে ‘দানা-কালী খুব যত্ন করিয়া রাখিয়াছিলেন। রাখাল বােম্বাইয়ের অন্যান্য অনেক স্থানেও গিয়া থাকিয়াছিল এবং তাহার সহিত অনেকের