পাতা:অধিকার-তত্ত্ব.pdf/৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


[ 8b" ] অষ্টম অধ্যায় । مسلسجنح جهد يمسسيسه ব্ৰহ্মবাদিরাই দুৰ্ব্বলাধিকারীগণকে উপদেশ দিবার অধিকারী । ১ । কনিষ্ঠাধিকারীগণের ধারণশক্তি যতই কেন নিম্নে অবস্থান কৰুক না, অাদর্শকে উচ্চস্থানে রাখিতেই হইবেক । উfহারা মূৰ্ত্তি নিৰ্ম্মাণ করিয়া অথবা মানস কম্পনায় চিত্র করিয়া আপন আপন ইষ্টদেবের আরাধনা করিবেন বটে, কিন্তু ব্ৰহ্মজ্ঞান উপার্জন এবং ব্রহ্মের পূজায় আরোহণ করাই উপহারদের লক্ষ্য হইবেক । তাদৃশ উচ্চলক্ষ্য যাহার হৃদয়ে জাগৰুক আছে, তিনিই অন্যের হৃদয়ে সেই আদর্শ ও লক্ষ্যকে জাগৰুক করিয়া দিতে ক্ষমবান হয়েন । অতএব তাদৃশ বলবান পুৰুষ ব্যতীত দুৰ্ব্বলের সাহায্য অণর কে করিবে ? ' ২। মাতা যেমন আপন শিশুকে দুগ্ধপান করাইয়া অন্ন আহারের উপযুক্ত করিয়া তুলেন, কিন্তু আপনি শিশুর ন্যায় দুগ্ধপোষ্য নহেন ; চিকিৎসক যেমন রোগীকে লয়ু পথ্য দিয়া তেজস্কর দ্রব্যাহারের যোগ্য করিয়া তুলেন, কিন্তু রোগীর সঙ্গে আপনি কখন লঘুপথ্য গ্রহণ করেন না ; শিক্ষক যেমন ছাত্রকে লঘু-শিক্ষা প্রদান করেন, কিন্তু উiহার আপনাকে লঘু-শিক্ষা লইতে হয় না ; ব্রহ্মোপাসক সেইরূপ কনিষ্ঠাধিকারী:দিগকে র্তাহারদের নিজ নিজ প্রয়োজনানুসারে, তাহারদের পরিপাক ও ধারণাশক্তির