পাতা:অধিকার-তত্ত্ব.pdf/৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


b-3 অধিকার-তত্ত্ব । এবং শিষ্টাচার পরিপ্রাপ্ত মঙ্গল-জনক রীতি নীতিও অর্ধবলের বিৰুদ্ধ না হয়, ভাহা উপকার লক্ষ্য করিয়া তত দূর গ্রহণ করিতে মানবের অধিকার অাছে । * , ২ । পুরাবৃত্ত পাঠে জানা যায় আদি কালে ভারতের তুলনায় অন্যান্য বর্ষ অসভ্য ছিল । তথাকার লোকেরা, মানাজাতীয় স্বভাবজাত ও শিম্পজাত বহুমূল্য মণির ত্ব রেসম ও কাপাস, ধাতু ও অন্য দ্রব্য, এদেশ হইতে লইয়। গিয়া স্বীয় স্বীয় দেশের শ্ৰীবৃদ্ধি করিয়াছিলেন । ৩ । পূৰ্ব্বকালে ভারতবর্ষ সমস্ত জগতের জ্ঞানধৰ্ম্মের পরম রত্নগিরি ও মঞ্চস্বরূপ ছিল । এখান হইতে তৎকাল:Ffণভ যজ্ঞবন্দন ও পুত্তলিকা পূজার অনেক ব্যবস্থা এবং "মই ধৰ্ম্মশাস্ত্রের অনেক ভাগ ইরাণ, তুরাণ, আরব, মিসর, ন যুনানে গৃহীত হইয়াছিল এবং এখান হইতেই বৌদ্ধধৰ্ম্ম চতুৰ্দ্দিগে প্রচারিত হইয়াছিল । ৪ । ভারতবর্ষ যেন সেই আদিকালে ধৰ্ম্মের পাকশাল fভূল ; তাহার অগ্নি কখন নিৰ্ব্বাণ হইত না । ঋষিরা সৰ্ব্বত্যাগী হইয়া দিব। নিশি স্বদেশবাসী ও প্রতিবাসীগণের বিভিন্ন ৰুচি অনুসারে নাম্বাবিধ অন্নব্যঞ্জন ও মিষ্টাম প্রস্তুত করিতেন । পরমানন্দের সহিত তাহাই আবাল-বৃদ্ধ১ তাকে পরিবেষণ করিতেন । সেই সকল খাদ্যের এতই fাট্য ও মিষ্টতা ছিল যে, তাহার জন্য সকল লোকই গ্নিত হইত। কুলবধুরা পর্য্যন্ত তাহা ভোজন করিয়া স্বৰ্গীয় অমৃত-রসে প্রমত্ত হইতেন । । অতএব যাহারদের ঘরে ভক্ষ্য ভোজ্যের এত