প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৈশাখ মাস। [ শ্ৰী তারিণীপ্ৰসাদ জ্যোতিষী লিখিত । ] নারদ বলেন,-বৈশাখ মাসের সমান মাস নাই; কবিগণ বলিয়াছেন, যেমন সত্যযুগের সমান যুগ, বেদের সমান শাস্ত্ৰ, গঙ্গাতুল্য তীর্থ, জলদানের সমতুল্য দান, ভাৰ্য্যাসুখসদৃশ সুখ, কৃষিসদৃশ সম্পদ, জীবনলাভের তুল্য লাভ, অনশনসমান ব্রত, দানসদৃশ শ্ৰেষ্ঠ সুখ, দয়ার তুল্য ধৰ্ম্ম, চক্ষুর অনুরূপ জ্যোতি, রসনাতুল্য তৃপ্তি, কৃষির তুল্য বৃত্তি, ধৰ্ম্মের তুল্য মিত্র, সত্যের সমান যশ, আরোগ্যের ন্যায় উন্নতি এবং কেশবসদৃশ ত্ৰাতা নাই, তদ্রুপ ত্ৰিলোকে মাসসমূহ মধ্যে বৈশাখের সদৃশ পবিত্র মাস আর নাই। বৈশাখমাসই মাসমধ্যে প্ৰধান ও শেষ শায়ী হরির সর্বদা প্ৰিয় । যে মানব মাধবপ্ৰিয় বৈশাখমাস ব্ৰত ব্যতীত অতিবাহিত করে, সে সৰ্ব্বধৰ্ম্মবহিস্কৃত হইয়া সত্বর তিৰ্য্যাগযোনি প্ৰাপ্ত হয় । বৈশাখমাসে সূৰ্য্য মেষ রাশিতে উপস্থিত হয়েন, হিন্দুশাস্ত্ৰে উত্তরায়ণমধ্যে এই মাস সৰ্ব্বশ্রেষ্ঠ পুণ্যমাস বলিয়া কথিত হয়। যাবতীয় পুণ্যকাৰ্য্যের অনুষ্ঠান করিবার জন্য এই মাসে ঋষিরা যে ব্যবস্থা করিয়া গিয়াছেন, তাহ ধৰ্ম্মশীল মানবগণের পক্ষে অবশ্য কৰ্ত্তব্য। উহা দৈহিক ও মানসিক বিশেষ উন্নতিসাধক ৷ ঋষিগণ বলেন,-বৈশাখমাসে জলদান, অন্নদান, ছায়াদান, ছত্ৰদান, পাদুকাদান, বটবৃক্ষাদি রোপণ, অতিথিসৎকার ও জলাশয়াদি খনন পুণ্যজনক । নারদ বলেন,- তৈলাভাঙ্গ, দিবানিদ্রা, কাংস্তপাত্রে ভোজন, খটায় শয়ন, গৃহে তোলাজলে স্নান, নিষিদ্ধ বস্তু ভক্ষণ, দ্বিরশন এবং নাক্ত ভোজন, বৈশাখ মাসে এই আটটি পরিত্যাগ করিবে । যে মানব বৈশাখে পদ্মাপত্রে ভোজন করে ও ব্ৰতস্থ হয়, তাহার বিষ্ণুলোকে গমন হয়। বৈশাখমাসে কখন অস্নাত থাকিবে না । প্ৰতিদিবস প্রাতরুত্থান, প্ৰাতঃস্নান অথবা সন্ধাস্নান করা কীৰ্ত্তব্য। শাস্ত্ৰে আছে, যাহারা বৈশাখমাসে অস্নায়ী, কুৎসিত পাত্রে ভোজনকারী এবং দৃঢ়বন্ধ রোগহীন ব্যক্তি গৃহে বসিয়া তোলাজলে স্নান করে, সে চণ্ডালও রাসভযোনি প্ৰাপ্ত হয়। বৈশাখমাসে সুৰ্য্যের উত্তাপ প্রখর হয়, গ্রীষ্মের প্রাখৰ্য্যবশতঃ শরীর ঘৰ্ম্মাক্ত ও উত্তাপবহুল হয়, তজ্জন্য দেহমধ্যে রস ও কফের প্রকোপ দৃষ্ট হয়। আয়ুৰ্ব্বেদকর্তা সুশ্রুত বলেন,-এই নিদাঘকালে মধুর ও D BDBS BBSLLBDYBBDS DBDDDD BDDBS DDBDS উষ্ণ আহার, পরিশ্রম, মৈথুন, অতিশোষণকার ভোজন বা ক্রিয়া এবং বিবিধ পিত্তবৰ্দ্ধক রস পরিত্যাগ করিবে । সরোवज्र, नौ, प्नांश्ज्ञ वन, फन्न, भांबा, श्रद्म, ॐ९°ांव, उांढगडूश्ठবাজন, শীতল গৃহ, ঘৰ্ম্মকালে অতি লঘু বস্ত্র, শর্করাযুক্ত সুগন্ধি সরবৎ, শর্করাযুক্ত মন্থ এবং শীতল স্বতযুক্ত মধুর দ্রবন্দ্রব্য ভোজন এই কালে বিশেষ হিতকর। রাত্রিকালে শর্করাসহ দুগ্ধ ভোজন এবং চন্দনচচ্চিতাঙ্গ হইয়া, বায়ুসঞ্চারিত স্থানে, প্রস্ফুটিত কুসুমবিকীর্ণ সুশীতল শয্যায় শয়ন করিবে। গ্ৰীষ্মকালে ধাতুপাত্রে ভক্ষণ নিষিদ্ধ। বিশেষতঃ রোগী ও গ্ৰহপীড়িত ব্যক্তির পক্ষে বিষ তুলা ফল প্ৰদান করিয়া থাকে। মানুষ্যের ন্যায় ধাতুপাত্ৰও গলিত বা ঘৰ্ম্মাক্ত হয়, উহা অন্নের সহিত যুক্ত হইয়া উদারস্থ হইলে দেহে বিষের ন্যায় কাৰ্য্য করে। সুতরাং অন্নাদি যাহা কিছু ভক্ষণ বা পান করিবে, প্ৰস্তর, কঁাচপাত্র বা বিবিধ প্ৰকার মৃন্ময়পাত্ৰাদি ব্যবহার করিবে। রন্ধনাদিও ধাতুপাত্রের পরিবর্তে মৃন্ময়পাত্ৰাদিতে হওয়া কৰ্ত্তব্য। যে স্বাস্থ্যকামী জ্ঞানবান পুরুষ এই কালে নিরামিষ আহার ও নিত্যস্বাস্থ্যকর ফলমূল সেবন করেন, তিনি নিশ্চয় দীর্ঘজীবন লাভ করেন। যিনি এই নিদাঘকালে ব্ৰহ্মচৰ্য্যপরায়ণ হইয়া কদলী বা পদ্মাপত্রে ভোজন, কদলীরস সেবন বা ফল ভোজন করেন, তাহার শরীরে কখন বাধি উপস্থিত হইতে পারে না । বৈশাখমাসে রাত্ৰিমান অল্প ও দিবামান অধিক । জীবজগতে এই সময় কৰ্ম্মলিপ্ত ও চৈতন্যশক্তির প্রশস্ততাহেতু দেহীর পক্ষে নানাবিধ শুভকাৰ্য্যে শুভফল লাভ হইয়া থাকে । দক্ষিণায়ন সময়ে সেই শুভফলের প্রত্যাশা করা যায় না ; কারণ, সেই সময় তামসী শক্তির প্রাধান্য হইয়া উঠে, তদ্ধেতু মনুষ্য অল্পায়ু ও অল্পজ্ঞানসম্পন্ন হইয়া বিবিধ দুরারোগ্য রোগের ও শোকের অধীন হইয়া থাকে। জ্যোতিষাচাৰ্যদিগের মতে দক্ষিণায়ন অপেক্ষা উত্তরয়নে জাতকের জন্ম ও মৃত্যুর ফল। অতীব প্রশস্ত। সূৰ্য্য মধ্যকক্ষ পরিত্যাগ করিয়া দক্ষিণে গেলে পাপগ্রহের কারকতাই বৃদ্ধি হয়, উত্তরায়ন প্ৰাপ্ত হইলে আপন পূর্ণশক্তিকে শক্তির আকর্ষণে শুভগ্রহের প্রাধান্যই বৃদ্ধি করেন। বৈশাখ মাসে জাতকের জন্ম হইলে জাতিক বুদ্ধিমান, দীর্ঘায়ু, সহিষ্ণু, জীবনীশক্তিযুক্ত, বিনীত, ধাৰ্ম্মিক, দাতা, সজ্জনপালক, যশস্বী, কফপ্রধান ধাতু ও স্ত্রীর প্রকৃতি প্ৰাপ্ত হইয়া থাকে। স্ত্রীগণ পুত্ৰবান, পতিব্ৰতা ও ধনশালিনী হয়েন। অবশ্য দুরাচার, অখাদ্যভোজী, অব্রহ্মচৰ্য্যশীল, মদ্যপায়ী, অগম্যাগামী প্ৰভৃতি মহাপাতকীর পক্ষে বৈশাখ কেন, কোন কালেই পুণ্য বা শুভফলের আশা করা যায় না। তাহারা নিজকৃত কৰ্ম্মফল দ্বারা কালকৃত বিবিধ শুভফলকে অতিক্রম করিয়া নানাপ্রকার দুঃখের ভাগী হয়। কাল ঈশ্বরপরায়ণ পুণ্যাত্মাদিগেরই চিরসহায় হইয়া, दिदिक्ष श्cडांश ७ अयांऊि बांश्ा (यद९ (जोडांशा नकल প্ৰদান করিয়া থাকেন।