পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম 제8-2 이r I ) মিথিলানাথ •ाझाझाङ श्यांद्भ नि९छ् दाश्ाठूज्ञ । N.


"س"۔ --سمتیہ =

the Indian Empire 5°tf f : fair so 2tc? দ্বারবঙ্গের রাজগণকে সরকার বংশানুক্ৰমে মহারাজ বাহাদুর উপাধি প্ৰদান করেন । গতি বৎসর মহারাজা বাহাদুর G, C, I. B. উপাধি প্ৰাপ্ত হইয়াছেন । আজকাল ভারতে হিন্দু-মুসলমানের বিবাদ অত্যন্ত প্রকট হইয়া উঠিয়াছে। ইতা ভারতবাসীর উন্নতির প্রধান পরিপন্থী। সেই জন্য মহারাজ স্থার রামেশ্বর সিংহ বাহাদুর সেই বিবাদের প্রশাসনকল্পে বিশেষভাবে চেষ্টা ও যত্ন করিয়া আসিতেছেন। এই মহারাজ বাহাদুরের অনুরোধক্রমেই মহামান্য আগা খাঁ ১৯১০ খৃষ্টাব্দে প্রয়াগধামে হিন্দু-মুসলমানের সম্মিলন-সমিতির অধিবেশন করিতে সন্মত হইয়াছিলেন । এলাহাবাদে যে সন্মিলন-সমিতি বসিয়াছিল, মহারাজ স্তার রামেশ্বর সিংহ বাহাদুর সেই সভায় হিন্দু-মুসলমানের মিলনের জন্য প্ৰাণপণে চেষ্টা করিয়াছিলেন। মুসলমান-বিশ্ববিখ্যালয়ের প্ৰতিষ্ঠার জন্য তিনি বিশ হাজার টাকা দান করিয়াছিলেন ; ইহাতে মুসলমানসম্প্রদায় মহারাজ বাঙ্গাদুরের উপর এত সস্তুষ্ট তহঁয়াছিলেন যে, মহারাজ যখন আলিগড়ে গমন করেন, তখন তথাকার মুসলমান মচোদয়গণ র্তাঙ্গাকে অত্যন্ত সাদরে অভিনন্দিত করিয়াছিলেন । মাননীয় আগা খায়ের ন্যায় মুসলমান বর্গও মহারাজ বাহাদুরকে প্ৰগাঢ় শ্রদ্ধা করিয়া পাকেন । হিন্দু-মুসলমানে সন্মিলন-চেষ্টায় মহারাজ বাহাদুর যেরূপ ঐকাস্তিকতার সহিত আত্মনিয়োগ করিয়াছেন, ভারতবর্ষীয় বিভিন্ন স্থানের ও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের হিন্দুদিগের মধ্যে প্রীতি ও সেচাদ্যসংজ্ঞাপনের জন্য ও মহারাজ বাহাদুর সেইরূপ চেষ্টা করিতেছেন। অসাধারণ সূক্ষ্মদৃষ্টির প্রভাবে তিনি বুঝিতে পারিয়াছেন যে, হিন্দুদিগের পরস্পরের মধ্যে সৌভ্রাত্ৰ ও সখ্য সংস্থাপিত না হইলে হিন্দুজাতির আর কল্যাণ নাই। সেই জন্য তাহ সংস্থাপন করিতে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম ও অকাতরে অর্থব্যয় করিয়াছেন ও করিতেছেন । আজকাল কুশিক্ষার প্রভাবে হিন্দুর জাতিভেদসম্বন্ধে জনসাধারণের মনে যে ভ্ৰান্ত ধারণা জন্মিয়াছে, মহারাজ তাহার নির্যাকরণকল্পে বিশেষভাবে চেষ্টা করিতেছেন। হিন্দুজাতির স্বার্থরক্ষা, হিন্দু-মুসলমানে সৌভ্রাত্র প্রতিষ্ঠা ও হিন্দুসমাজে রাজভক্তিবন্ধনের উদ্দেশ্যেই মহারাজ বাহাদুর সমস্ত ভারতবর্ষীয় হিন্দুদিগকে লইয়া একটি বিরাট সভা গঠিত করিতে চেষ্টা পাইয়াছিলেন। মহারাজ বাহাদুরের ঐকান্তিক চেষ্টা নিস্ফলা হয় নাই । উত্তর ভারতের নানা স্থানে হিন্দু মুসলমানে মিত্রতাসংস্থাপনের জন্য অনেক গুলি সমিতি প্ৰতিষ্ঠিত হইয়াছে, নানা সম্প্রদায়ের হিন্দুদিগের মধ্যেও সখা সংস্থাপনের উদ্দেশ্যে স্থান স্থানে হিন্দুসভা প্রতিষ্ঠিত হইয়াছে। পাঞ্জাব-হিন্দুসভা মহারাজ বাহাদুরের চেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত। কয়েক বৎসর পূর্বে মুলতানে হিন্দু-মুসলমানে যে বিরোধ বাধিয়াছিল, মহারাজ বাহাদুরের ঐকান্তিক চেষ্টাতেই তাহ প্রশমিত হয় । এই 9. AAA AAAS SLTS LALASS AAL S AAALASS SAASeSeS eeLLLLSSTS LSLS TTTSS SeSLeLSLS SASeALeAL ALALeLeS LS S L LSS AA eT TSLLS L S LMLSAA AAAA ATeLS SeMLSS SS SSLSLSSSSL AA SeSLeS S0S LSeeS eSSSS SSeLSAe0S LLqSSSS SLMSASAeLeeS ee eSS Se eS AiSSSSeLLLLS LSLSeLeAS LLeLS বিবাদ-প্রশমনে মহারাজ বাহাদুর সরকার বাহাদুরের যথেষ্ট সহায়তা করিয়াছিলেন । লোকহিতকর। কাৰ্য্য । মহারাজ স্থ্যার রামেশ্বর সিংহ বাহাতর চিরদিনই লোক - হিতকর অনুষ্ঠানে যোগ দিয়া আসিতেছেন । রাজনীতি . ক্ষেত্রে তাহার কাৰ্য্য অনন্যসাধারণ । তিনি প্ৰজার মানব ভাব রাজাকে বুঝাইয়া দিতে এবং রাজার সহানুভূতি ও উদারতার কথা প্রজার মনে গাথিয় দিতে যথাসাধা চেষ্টা ও যত্ন করিয়া আসিতেছেন। মহারাজ বাহাদুর চিরদিনই প্রকৃ “স্বদেশী"র পক্ষপাতী । লর্ড রিপণের আমল হইতেই তি দেশায় শিল্পের উন্নতিকল্পে আত্মনিয়োগ করিয়া আসিতেছেন । কলিকাতায় সে ইণ্ডিয়ান ষ্টোরস সংস্থাপিত হইয়াছিল, নাচ’ রাজ বাহাদুর তাঙ্গার ও একজন উদ্যোক্তা ও পৃষ্ঠপোষক ছিলেন । স্বদেশী শিল্পের ও বাণিজোর সহায়তাকন্নে মেবেঙ্গল ন্যাশানাল ব্যাঙ্ক সংস্থাপিত হইয়াছে, স্যার রামেশ্বর সিংহ বাহাদুর তাহার ও একজন পৃষ্ঠপোষক। তবে তিনি কস্মিনকালে ও ভাক্ত স্বদেশী ‘বািন্নকট’র সমর্থন করেন নাই ; তিনি তাহার অসামান্য প্রজ্ঞাবলে বুঝিতে পারিপ্লাছিলেন বে: রাজনীতিক বিক্ষোভের সহিত দেশের শিল্পসম্পকিত ব্যাপার বিজড়িত করিলেই উভয় ক্ষেত্রেই তাহার ফল মন্দ হইবে । তাই তিনি আমাদের দেশের তথাকথিত নেতাদিগকে এ । বিষয়ে বিশেষ সাবধান করিয়া দিতে চেষ্টা করিয়াছিলেন । कि छु ठुॐा%ाऊ4भ অদুরদর্শী জননাদুকগণ সে কথা গ্ৰাহ্য করেন নাই । কালে মহারাজের কথাই সত্য বলিয়া স প্রমাণ হইয়াছে। বয়কটের নাটুকেপণা হইতে যে কতকগুলি গুরুতর দোষের উদ্ভব হইয়াছে, তাহা অস্বীকার করি বােব উপায় নাই । মহারাজ বাহাদুর স্বায়ত্তশাসনের বিশেষ পক্ষপাতী ! তবে একেবারে আকাশের চাদ ধরিবার বাসনা কখনই র্তাহার মনে বলবতী হয় নাই। দেশের লোক যাহাতে, আত্মনির্ভরতা শিক্ষা করে এবং করিবার অবকাশ পায়, মহৎ রাজ বাহাদুর বরাবরই তাহার জন্য চেষ্টা ও যত্ন কবিসু আসিতেছেন । সেই উদ্দেশ্যে তিনি প্ৰাচীন গ্রাম পঞ্চায়েৎপ্ৰথা প্ৰবৰ্ত্তিত করিবার প্রয়াস পাইয়াছেন । লক্ষ্য করিয়াছিলেন যে, গৃহ-বিবাদ ও বৈষয়িক বিসংবাদই বঙ্গীয় ভূস্বামীদিগের অধঃপতনের একটি প্রধান হেতু। সেই জন্য তিনি স্বয়ং উদ্যোগ করিয়া কলিকাতায় “জনীদারী: পঞ্চায়েৎ” প্রতিষ্ঠিত করেন । এই জনীদারী পঞ্চায়ে ২ দ্বারা দেশের অনেক শুভকাৰ্য্য অনুষ্ঠিত হইয়াছে, অনেক গৃহ-বিবাদ মিটিয়া গিয়াছে। আমাদের দেশের লোকে বা যদি কৰ্ত্তবানিষ্ঠা, উদ্যোগশীলতা ও প্রকৃত স্বৰ্গবোধ অধিক থাকিস্ত, তাত হইলে এই পঞ্চায়েতের দ্বারা আরও অনেক গৃহ-বিবাদের নিষ্পত্তি হইতে পারিত। f حی به عمیق rحجاج [可可 झंकृ* Gy