প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/১৮৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কৃষি । ( 0) মাটি। গতবারে আমি নানাপ্রকারের মাটির কথা বলিব বলিয়াছিলাম। বৈজ্ঞানিক-বিশেষতঃ পাশ্চাত্য বৈজ্ঞানিক পারিভাষিক শব্দ বাঙ্গালায় সোজা কথায় বলা বড় কঠিন, চলিতভাষায় উহার প্রতিশব্দ পাওয়া যায় না। আবার স্থানবিশেষে D DDBDBKBuBB DB BB BD DD DBDBS DD ঐ শব্দগুলি নিতান্ত গ্ৰাম্য ও সংকীর্ণ স্থানে সীমাবদ্ধ বলিয়া অন্য স্থানের লোক উহা বুঝিতে পারে না। আমরাও চাষীদিগের সকল শব্দের সহিত পরিচিত নাহি। যাহা হউক, সেই জন্য আমি মোটামুটিভাবে মাটির কথা আলোচনা করিব। আমাদের দেশে চাষীদের মুখে সচরাচর তিন রকমের মাটির কথাই শুনা যায়; যথা-(১) বেলে-মাটি, (২) অ্যাটালেDS DLS BSDBDLSDSS S BD D DBBD DB BBDBBDB মাটি আছে ; যথা-খড়েল-মাটি ; (২) পচাল-মাটি । পড়েল-মাটিতে খড়ির (Carbonate of Lime) Sos CSF থাকে। পচাল-মাটিতে উদ্ভিজ্জের পচানীর ভাগই অধিক । খাস বাঙ্গালায় খড়েল-মাটি অতি অল্পই আছে। নিমবঙ্গে পচাল-মাটির অভাব নাই, কিন্তু চাষীরা উহাকে সচরাচর দো-অ্যাশ-মাটিই বলে। বেলে মাটি । আমরা প্ৰথমে বেলে-মাটির কথাই বলিব। যে মৃত্তিকায় বালী বা বালুকার ভাগ অধিক, তাহাকেই বেলেBB BBS BDBuDu DDD DDD BB BBD SS DB DDD এই রকমের জমীতে আরও কিছু থাকে। বেলে-মাটি চেনা খুব সহজ। রৌদ্র, বৃষ্টি, বায়ু প্রভৃতি নৈসর্গিক প্রভাব ইতার বিশেষ কোন পরিবর্তন সাধিত করিতে পারে না । রৌদ্রের তেজে বেলে-জমী ফুটিফাটা হয় না, এমন কি, উহার উপর একটু দাগও পড়ে না। কারণ, বালী কিছুতেই পচে না DD BBBDDD DDD D S BBB uB BB BD DDD সুবিধাজনক। বেলে-জমী খুব আলগা ; উহাতে সহজেই লাঙ্গল ও কোদালী বসিয়া যায়, সুতরাং চাষীদিগের এই জমীতে চাষ দিতে বিশেষ কষ্ট হয় না । এই জমী সহজে উত্তপ্ত হয়, কারণ বালীর আপেক্ষিক উত্তাপ একপঞ্চমাংশ ("2) মাত্র। বেলে-জমীর উপর দিয়া খালি পায়ে হঁটিতে গেলে বিশেষ কষ্টকর হয় না, কেবল রৌদ্রের সময় এই জমী অত্যন্ত উত্তপ্ত হয় বলিয়া পা সহজেই উত্তপ্ত হয়। বেলেজমী সৰ্ব্বদাই শুষ্ক থাকে, উহাতে কাদা হয় না। বেলে মাটি জল ধরিয়া রাখিতে পারে না ; উহাতে জল পড়িলে cनशे खल भांब्रिङिऊब्रु ब्रिा १ॉफुांशेब्रा निशा शांश । ॐखादृश्रद्भ আধিক্যবশতঃ বেলে-জমীর জল বাস্পাকারে উড়িয়া যায়, জল বাস্পাকারে উড়িতে থাকে বলিয়া সিক্ত বেলে-মাটি খুব ঠাণ্ডা হয়। বেলে-জামীতে যে চাষ হয় না, এ কথা সতা নহে। আমরা পূর্বেই বলিয়াছি যে, সূৰ্য্যতাপে বালুক সহজে উত্তপ্ত হয় বলিয়া বেলে-জমীর ফসল শীঘ্ৰ পাকিয়া DD BB BDBBDS DBDD S DDS DDD DDDLD DBDBBB DBDS কিন্তু একটা বিশেষ কথা আছে। যে অঞ্চলে অত্যন্ত অধিক বৃষ্টি হয়, জমী শুকাইবার অবকাশ পায় না, সে অঞ্চলে বেলে-জমীতে ফসল বেশ ভাল হয়। আবার বালুকার সহিত যদি উর্বরাশক্তিপ্ৰদ জিনিস থাকে, তাহা হইলে বেলে-জমীর ফসল ভালই হয়। পদ্মা, ব্ৰহ্মপুত্র, যমুনা, দামোদর প্রভৃতি নদীর তীরস্থ ভূমির মৃত্তিকা বালুকাবহুল। কিন্তু ঐ সব নদীচরে সোণা। ফলে । তাহার কারণ, নদীর পলির সহিত ঐ বালী এমনভাবে মিশ্রিত যে, উহার উর্বরাশক্তি অত্যন্ত বৃদ্ধি পায়। বালীর সহিত উদ্ভিদের খাদ্য অত্যন্ত আলগাভাবে মিশ্রিত থাকে। বালুকা প্ৰধান মৃত্তিক সহজে জলও শুষিয়া লয়। ঐ সকল চরাভূমিতে উদ্ভিদরা সহজে শিকড় নামাইতে পারে, কারণ, বেলে জমী কখনও কঠিন হয় না । উদ্ভিদ সুদীর্ঘ শিকড়দ্বারা সেই জমীতে আলগাভাবে জড়িত আহাৰ্য্যপদার্থ শুষিয়া লইতে সমর্থ হইয়া থাকে। সেই জন্য বর্ষাবহুল বা বিস্তীর্ণ নদীর সন্নিহিত বেলে-মাটিতে ভাল ফসল হইয়া থাকে। কিন্তু যে অঞ্চলে বৃষ্টি কম হয় ও যে অঞ্চলে জলাভাব অধিক, সে অঞ্চলে বালুকাবহুল ভূমি প্ৰায় মরুতুল্য হইয়া পড়ে। বেলে-জমীর একটা বিশেষ গুণ এই যে, ইহাতে জলসেচন করিলে বেশ সুফল ফলিয়া থাকে। সেচের জল যদি জমীর সকল স্তরে গড়াইয়া যায় এবং জমীতলবাহী জলের বা পয়ঃনালীর জলের সহিত মিশে, তাহা হইলেই সুফল ফলিবার BBD S S SBBBSSBLBDS SDDD S DDDDD DS LBBBD SYY যখন জমীর ভিতর দিয়া যায়, তখন উদ্ভিদের শিকড়ের সহিত ঐ জলের মিলন হয়। ফলে, জলে যে সমস্ত উদ্ভিদের খাদ্য ভাসমান বা মিশ্রিত থাকে, তাহা জমীতেই থাকিয়া DD SS BDD DDD DDS DBDBDBD BDBB BB LBDDBDO পচানী জল বেলে-জমীতে সেচন করিলে সেই জমীর শস্য भूद डांग श्श थाटक। बाबू qका कथा भान ब्राविड