প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/২০১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


qቀሻ ቀë-—ዃNéስሟ ማደግn ] ] এই করলা আমাদের দেশে সচরাচর ৯/১০ ইঞ্চির অধিক YK DB BBL DDD KSSD BBBS DD STDD অঞ্চলে ১৫১৬ ইঞ্চি লম্বা এবং আধ সেরা ওজনের এক একটি করলা দেখিতে পাওয়া যায় ! আবার ফলের তারতম্যানুসারে পাতার ও আকৃতিগত তারতম্য দেখা যায়। সাধারণতঃ এইটুকু সহজেই দৃষ্টিগোচর হয় যে, যে জাতীয়ের ফল যত বৃহৎ, সেই জাতীয়ের পাতাও অপেক্ষাকৃত তত বড় । , করলা ও উচ্ছেকে যথাক্রমে হিন্দীতে-কারেল, করে লী; তৈলঙ্গে-করিলা, কাকরকায়া ; মহারাষ্ট্রে-কারলেং, ক্ষুদ্র কারালী ; গুজরাটে-কারেল, কড়বাবেলা ; কৰ্ণাটেছাগল ; আরবীতে-কিসসা, উলহিমার ; ফারসীতেকারেলাহ ; উৎকলে -শলরা ও কলরা ; ইংরেজীতেHairy Mordica at: 1rtha Momardica Charan. tia বলে । ইহার শাস্ত্রীয় নাম-কারবেল্ল ও কঠিল্ল (করলা) এবং কারবেল্পী (উচ্ছে) । যদিও ইহার চারি প্রকার ভেদ সচরাচর দেখিতে পাওয়া যায়, তথাপি শাস্ত্রীয় নির্দেশানুসারে আমরাও ইহাকে দুইপ্ৰকার ( করলা ও উচ্ছে ) নামেই অভিহিত করিতেছি, এ কথা পূর্বেই উক্ত হইয়াছে। বিশেষতঃ ইহার এই আকৃতিগত বৈষমা থাকিলেও গুণ প্ৰায়ই সমান, সুতরাং এই দুই প্রকার ভেদেই উদ্দেশ্যসিদ্ধির যথেষ্ট আনুকুল্য হইতে পারে । “কারবেল্লমবুন্যঞ্চ রোচনং কফপিত্তজিৎ ।” ( রাজনিঘণ্টা । ) করলা আবুষ্য, রুচিজনক, কফি ও পিত্তনাশক। “কারুবেল্লং চিমং ভেদি লঘু তিক্তমবাতিলম। জ্বরপিত্তকফাস্রম্নং পাণ্ডুমেহক্রিমীন হরেং ॥ had d বনৌষধ। ১৫৩ তদগুণ কারবেল্লী স্থাৎ বিশেষাদ্দীপনী লঘু।” ( ভাবিপ্ৰকাশঃ । ) করলা শীতবীৰ্য্য, ভেদক, লঘু ও তিক্তরাসবিশিষ্ট। ইহা জর, পিত্ত, কফ, রক্তদোষ, পাণ্ডু, মেহ ও ক্রিমি বিনাশ করে এবং ইহা বায়ুবৰ্দ্ধক নহে। কারবেল্পী অর্থাৎ উচ্ছে করলার সদৃশ গুণবিশিষ্ট, বিশেষতঃ ইহা অগ্নিদীপক ও লঘু। “কারবেল্লঃ সকৰ্কোটঃ রোচনা কফপিত্তনুৎ ৷” (চক্রপাণিকৃত দ্রব্যগুণসংগ্ৰহঃ । ) করলা ও কঁকরোল রুচিজনক, কফি ও পিত্তনাশক । -pi massa adhib * ܚܒܠܚ rer--reper উদ্ধত ‘প্রামাণ্য বচনগুলি দৃষ্ট দেখা যায় যে, একমাত্র DB KBDBDDDDDS DDDBD S DDBBLS DBDDS DBDBD BDDD ইহার কোনও ভেদ কল্পনা করেন নাই । ভাবমিশ্রেীর মতে আকৃতিগত জাতিভেদ থাকিলেও গুণবৈশেষ্য অতি সামান্য ; সুতরাং করলা ও উচ্ছে যে প্ৰায় সমগুণবিশিষ্ট, এ কথা সৰ্ব্ববাদিসন্মত বলিলেও অতুক্তি হয় না। উচ্ছে ও করলা যে বিশেষ রুচিকারক, ইহা সকলেই অবগত আছেন। তদ্ভিন্ন ইহার বসন্ত প্ৰতিষেধক গুণ দেখিলে বিস্মিত হইতে হয় । বসন্তের প্রকোপসময়ে যাহারা প্ৰত্যহ ভোজ্যের সঙ্গিত এই মহোপকারী দ্রব্য ভোজন করেন, তঁহাদিগের বসন্তের আক্রমণ জন্য শঙ্কিত থাকিতে হয় না । বসন্তরোগে উচ্ছের পাতার রসও বিশেষ হিতকর । উক্তরোগে ঔষধের সঙ্গ পানরূপে ইহার যথেষ্ট ব্যবহার দৃষ্টিCीibद्र श्* । অতএব জ্বরে পথা, পিত্তনাশক, রুচিজনক, বসন্তপ্ৰতিষেধক এই মহোপকারী দ্রব্যটি সৰ্ব্বসাধারণের দৃষ্টিতে উপেক্ষিত হইয়াও আমাদের কত উপকার সাধন করিতেছে, তাহা বৰ্ণনাতীত ।