প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/২৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


德 অনাথবন্ধু। . [ প্ৰথম বর্ষ, আশ্বিন, ১৩২৩৷৷ ه سواد . —琴园 حےبےحسـے جسٹس خطے re-rr re-re Alessa রাজ্যগুলি ছোটনাগপুরের উত্তরে ও বিলাসপুরের পূর্বে অবস্থিত। রাম দেব হইতে নবমপুরুষ রাজা নরসিংহ দেব র্তাহার ভ্রাতা বলরাম সিংহ দেবকে বলরামপুর রাজ্যটি দান করেন । এই বলরাম সিংহ দেব হইতে অধস্তন ত্ৰয়োদশপুরুষ রাজা মদনগোপাল সিংহ দেব খৃষ্টীয় ষোড়শ শতাব্দীর মধ্যভাগে শোণিপুরে বর্তমান রাজবংশ প্রতিষ্ঠিত করেন। তিনি ঐ অঞ্চলের আদিম অধিবাসীদিগের নিকট হইতে ঐ রাজ্যটি জয় করিয়া লইয়াছিলেন। মহারাজ শ্ৰীল শ্ৰীসূত বীর মিত্ৰোদয় সিংহ দেব ধৰ্ম্মনিধি বাহাদুর উক্ত রাজা মদনগোপাল সিংহদেব বাহাদুর হইতে অধস্তন দ্বাদশপুরুষ মাত্ৰ। নিমে ಟ್ಗ? DBDBB D S DDBYBYBD SDSBBD S KD 奪研l রাজগণের নাম तjक्र कjī SS S SDmm DtDDDDDBDB uD SDB '<))? ا؟ <۔ ا؟( oما( R ! , ॥ळळ् p > ツ oツ > % 5(? ७ । । शृtशॉर्ड्ळुना S Vኃ ሟ¢ S Vኃዓ « 8 । , वैज्ञा > が (2-> ? o;) 6 অচল y እ ማ oእS- S ግ 5 (፩ ৬ । ৫ দিব্য ቃዊ وامالا - ) با ۹ لا ৭ । , জরোয়ার g እ ዓ Yኃ9- S ዓ Vኃዒ ৮ । , শোভা yQ S ዓ ኴኃዓ . S ዓbr S ৯ ।। ৫ পৃথীসিংহ দেব বাহাদুর > "レr>ー)b-8) ১০ । ৬. নীলধর y >リク8 > - > ワ ふ > ১১ । , প্ৰেতাপরুদ্র , Sኴ” እm »-እ እ G‛S ১২ । ... শ্ৰীবীর মিত্ৰোদয় সিগত দেব १‘शक्षि २ ० ० ० - শোণিপুরের বর্তমান নরপাল শ্ৰীবীর মিত্ৰোদয় সিংহ দেব বাঙ্গাতুরের পিতামহ রাজা নীলধর সিংহ দেব বাঙ্গাগরের সহিত বৃটিশরাজ সন্ধিসূত্রে আবদ্ধ হন। তৎকালে রাজা নীলধর সম্পূর্ণ স্বাধীন নৃপতি ছিলেন। ইংরেজ সরকার শোণিপুরের রাজগণকে করদরাজা বলিয়া স্বীকার করেন । সরকার বাহাদুর শোণিপুররাজকে যে সনন্দ দান করিয়াছেন, তাহাতে রাজাকে রাজ্যের আভ্যন্তরীণ শাসনে কয়েকটি বিষয় ব্যতীত আর সমস্ত বিষয়ে সর্বতোমুখী ক্ষমতা প্ৰদান করিয়াছেন। স্বৰ্গীয় রাজা নীলধর সিংহ প্রজাবর্গের ভক্তিভাজন ও বৃটিশরাজের অনুরক্ত সামান্তরাজ বলিয়া পরিজ্ঞাত ছিলেন । পলিটিক্যাল-বিভাগে এই কথা স্পষ্টই স্বীকার করিয়াছেন যে, যে সময় ভারতসাম্রাজ্যে শান্তি পূর্ণমাত্রায় প্রতিষ্ঠিত হয় নাই, সেই সময় রাজা নীলধর সিংহ দেব বাহাদুর ইংরেজ সরকারকে বিশেষ সহায়তা করিয়াছিলেন। সম্বলপুর অঞ্চলে বিদ্রোহ দমনের সময় স্বৰ্গীয় রাজা নীলধর সিংহ দেব • DDDBDBD BBBDBDBDB BB DDDBD DBBDS DDDD করিয়াছিলেন। এখন সে সময়ের পরিবর্তন হইয়া গিয়াছে। রাজা নীলধর সিংহ বাহাদুরের আমলে আঙ্গুল ও খোন্দমল অঞ্চলে গোলযোগ উপস্থিত হইয়াছিল এবং তিনি সেই সময় ঐ অঞ্চলের বিশৃঙ্খলা বিদূরিত করিয়া সুশৃঙ্খলা সংস্থাপনে বৃটিশরাজের প্রতিনিধিকে বিশেষভাবে সহায়তা করিয়াছিলেন। সেই সময় হইতেই শোণিপুরের সামন্তরাজগণ ইংরেজ সরকারের অনুরক্ত বলিয়া খ্যাতি অর্জন করিয়াছেন। ১', ৯১ খৃষ্টাব্দে রাজা প্ৰতাপরুদ্র সিংহ দেব বাহাদুর তঁহা ” পৈতৃক-সিংহাসনে অধিরোহণ করেন। তিনি সৰ্ব্ববিষয়ে তাহার পিতৃদেবের পদাঙ্ক অনুসরণ করিতেন এবং রাজ্য”। সনসম্পর্কিত অনেক ব্যাপারে উন্নতিসাধন করিয়াছিলেন: বলিয়া সবকারের বিশেষ প্ৰশংসা অর্জন করিয়াছিলে । दर्देभान ब्रांऊ| वांशछ्न् । রাজা প্ৰতাপরুদ্র সিংহ দেব বাহাদুরের লোকান্তরপ্ৰাপ্তির পর শোণি পররাজ্যের বর্তমান সামন্ত মহারাজ শ্ৰীবীর মিত্ৰোদয় সিংহ দেখি ধৰ্ম্মনিধি বাঙ্গাড়ির শোণিপুরের সিংহাসনে আরোহণ করিয়াসেন। ১৮৭৪ খৃষ্টাব্দে মহারাজের জন্ম হয়, ১৮৮৭ খৃষ্টাব্দে মহারাজ বাহাদুরের উপনয়ন হইয়াছে। ১৮৯৫ খৃষ্টাব্দে ইঙ্গার পিতা কলাচাণ্ডির অন্তভূক্ত কাশীপুরের বিদুষী রাজনন্দিনীর সহিত ইহার বিবাহ প্ৰদান করেন। ১৯০১ খৃষ্টাব্দের ৮ই আগষ্ট ইনি গাদী প্ৰাপ্ত হন। বাল্যাকালেই মহারাজের ভবিষ্যৎ প্ৰতিভার পরিচয় পাওয়া গিয়াছিল। শৈশবেই মহারাজ বীর মিত্ৰোদয় উড়িয়া, ইংরেজী, সংস্কৃত, বাঙ্গালা, হিন্দীভাষা শিক্ষা করিয়াছিলেন এবং শকুন্তলা, বিক্রমোর্কশী ও রত্নাবলী নাটক উড়িয়াভাষায় অনূদিত করিয়াছিলেন। মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ঐ অনুবাদ উড়িয়া ভাষায় পাঠ্যপুস্তক বলিয়া নির্দিষ্ট করিয়াছেন। বাৰ্ত্তমান শোণিপুররাজ অন্যান্য রাজগণের ন্যায় দুৰ্ব্বল নতেন । তিনি বায়ামাদিতে মনোযোগী এবং অশ্বারোহণে ও শিকার খেলায় বিশেষ আনন্দ অনুভব করিয়া, থাকেন। মহারাজ শ্ৰীবীর মিত্ৰোদয় বাঙ্গাগুর যখন যুবরাজ ছিলেন, তখন তিনি রাজ্যের বিচার ও শাসনবিভাগে কাৰ্যা করিতেন । সেই সময় শোণিপুররাজ্য মধ্য প্রদেশের অন্ত- ' ভূক্ত ছিল। উক্ত প্রদেশের পলিটিক্যাল অফিসারগণ শিক্ষানবিশীর সময় মঙ্গরাজ বাহাদুরের কার্য্যদক্ষতার ও শিক্ষার বিশেস প্ৰশংসা করিতেন । মধ্য প্রদেশের চিফ কমিশনার এক সময় বক্তৃতা প্রসঙ্গে রাজা প্রতাপরুদ্রকে বলিয়া । ছিলেন,-“রাজা বাহাদুর প্রতাপরুদ্র সিংহদেব ! আপনার জ্যেষ্ঠপুল যে উৎকৃষ্ট খ্যাতিলাভ করিয়াছেন, তাহার জন্য আমি আপনার নিকট সর্বাপেক্ষা অধিক আনন্দ প্ৰকাশ করিতেছি । তিনি শাসনব্যাপারের সর্ববিষয়ে সুশিগণ লাভ করেন, এই অভিপ্ৰায় আপনি সর্বদাই প্ৰকাশ