প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/৩২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


- - AA MMLL LALLLL LLLLLLL MLMLT LL LL LMLeLMMMLL STSLSLMSeSLeLeSLASLeML eAS SeeeSLTAS e TTLS LeLeALALSTA SSTMLA LALA S eAAeSeSe LSSLS S SLA SAqAeSASLSeLALASSSAAAASLS ASASA S S পাকা বেল অত্যন্ত দুর্জর, দোষযুক্ত এবং দুর্গন্ধি বায়ুনিঃসারিক। কচি বেল অগ্নিবৰ্দ্ধক, কফি ও বায়ুনাশক এবং এই উভয়বিধ বেলই মলসংগ্ৰাহক । মহর্ষি অগ্নিবেশ বেলশুঠি আর্শোনাশক বলিয়াছেন,- কুটজবিম্বচিত্ৰক, • • • • • • • • ाgeअनि अgीव्रानि ऊदछुि ।” ( 5, ऌट्, 8, ङé ) মহামতি সুশ্রুতও বেলশুঠ পাকাতিসারনাশক, সন্ধানীয়, পিত্তে হিতকর এবং ব্ৰণপূরক বলিয়াছেন।—(অম্বষ্টাধাতকীসমঙ্গাকটু ক্ষমধুকবিদ্বপোশিকা গণীে প্রিয়ঙ্গ স্বাক্টাব্দী পক্কাতিসার নাশনীে । ) সন্ধানীয়েী হিতেী পিক্তে ব্ৰণা,নাঞ্চাপি রোপণেী ৷ ইদানীং পাশ্চাত্যচিকিৎসকগণও একস্ট্রাক্ট বেল –পালাভ বেল প্ৰভৃতি রূপে কচি বেল ঔষধাৰ্থ যথেষ্ট ব্যবহার করিতেছেন । এতাবৎ পৰ্যালোচনায় দেখা গেল যে, কচি বেলই ঔষধার্থ উপযোগী এবং বিশেষ হিতকর । অনেকে বলেন, পাকা বেল কোষ্ঠীপরিষ্কারক। এস্থলে এইটুকু বলা যায় যে, পাকা বেল অত্যন্ত গুরু ও দুজ্জার, সুতরাং উহা নিজের গুরুত্বনিবন্ধন সমাক পরিপাক না হইয়াই মালরূপে বহির্গত হয়। ইহা ও নিশ্চিত যে, পাকা বেল খাইলে যে বাহো ঠয়, তাহার পর পেটের লঘুত্ব ও কোষ্ঠীপরিষ্কারজনিত স্মৃষ্টি বােধ হয় না । সুতরাং এ বিষয়ে শাস্ত্রের সহিত মতভেদের কোনই কারণ নাই । যদিও চিকিৎসাশাস্ত্ৰে বেলপাতার পৃথক গুণবর্ণনা দেখিতে পাওয়া যায় না, তথাপি ঔষধােৰ্গ বা বঙ্গদত যোগাবলীতে উহার প্রয়োগ দেখিয়া কার্যকরী শক্তি অনুমান করিয়া লইতে হইবে । “বৃষার্কৈরান্তবিম্বানাং পত্ৰকাথৈশ্চ সেচয়েৎ ।” ( চ, চি, ৯ম অঃ । ) বাসক, এর গু ও বিম্ব, ইহাদের পত্রের কাথে সেক দিবে। বিল্বপত্রীরসং পূতং সোষণাং শ্বায়র্থেী ত্রিজে। বিটুসঙ্গে চৈব দুর্ণামি বিদধ্যাৎ কামলাস্বপি ৷ (চক্রদত্ত, শোথ, চি ৷ ) ত্ৰিদোষজ শোথ, কোষ্ঠবদ্ধ, অৰ্শ; এবং কমলাবাধিতে বেলপাত রস করিয়া ছাকিয়া মরিচচুৰ্ণসহ প্রয়োগ করিবে । মাত্র বেলপাতার রসের এত গুলি বাধিনাশের ক্ষমতা আছে, সুতরাং ইহার শক্তি সহজেই অনুমেয় । প্ৰায় ১০ বৎসর পূৰ্ব্বে আমি একটি ম্যালেরিয়াগ্ৰস্ত রোগী দেখিতে পাই । লোকটি দুই বৎসর যাবৎ জ্বরে ভূগিতেছিল; প্লীহা ও যকৃৎ খুবই বড়, শরীরে রক্ত আদৌ २७ অনাথবন্ধু । । [ প্ৰথম বর্ষ; আষাঢ়,১৩২৩ ৷৷ ছিল না বলিলেও অত্যুক্তি হয় না। অনেক চিকিৎসার পর হতাশ হইয়া চিকিৎসা ত্যাগ করিয়াছিল । * , যখন আমাদের সহিত তাঙ্গার সাক্ষাৎ ঠাইল, তখন জনৈক প্ৰাচীন ব্ৰাহ্মণ তাহাকে বলিলেন, “তুমি প্রত্যহ প্ৰাতঃকালে /০ এক ছটাক বেলপাতার রস পান কর এবং একাদশার দিনেউপবাস কর।” প্ৰায় চারি মাস পরে পুনরায় তাহার সহিত দেখা হইলে, প্রথমতঃ তাহাকে চিনিতেই পারি নাই । পরিচয়ের পর শুনিলান, উক্ত নিয়মপালনে তিনমাস মধ্যেই সে সম্পূর্ণ নিরাময় হইয়াছে। শরীর হৃষ্টপুষ্ট ও বলিষ্ঠ হইয়াছে। আর একটি বন্ধুর মুখে গল্প শুনিয়াছি, “একটি লোক পাগলের মত ছিল, কিছুই খায় না, মাত্ৰ প্ৰতােহ /৷০ পোয়া আন্দাজ বেলপাতার রস খাইয়া থাকিস্ত, এই অবস্থায় সে প্ৰায় ৩৪ বৎসর জীবিত আছে ।” অতএব বেলপাতার মেঃ কেবল বাধিনাশিক শক্তি আছে, তাহা নহে ; ইহার জীবনরক্ষিণী শক্তি ও যথেষ্ট । আমরা বাল্যকাল হইতেই শুনিতে পাই যে, তপস্বিগণ নিৰ্জনকাননে মাত্র বেলপ” তা খাইয়া জীবনধারণ পূৰ্ব্বক শ্ৰী শ্ৰীভগবানের ধানে নিরত থাকেন। তাতার উপর এই সকল প্ৰত্যক্ষ করিয়া বেলপ তার ব্যাধিনাশিনী ও প্ৰাণরক্ষিণী শক্তির কথা অবিশ্বাস করিতে পারি না । সুতরাং সৰ্ব্বদা প্রয়োজনীয়, সুলভ অথচ মহোপকারী এই দ্রবোর ব্যাবহার-প্ৰণালী দাঙ্গাতে সকলেই অবগত হইতে পারেন, সেইজন্যই আমার এই ক্ষুদ্র প্রবন্ধের অবতারণা। ইঠা দ্বারা কাহারও অণুমাত্র উপকার সাধিত হইলে পরিশ্রম সাৰ্থক মনে করিব । s=s.su·sa নিম । [ কবিরাজ ইত্য গ্ৰ অশু৩োষ ভিাষাগাচাৰ্য্য, কাব্য তীর্থ, ሩ [«ጻ፭ “| ጳ] {ኛ1Íጓ ይ | ] বেলের ন্যায় নিমও , थ्यों मt g द्व निष्ठोंठ *** অপরিচিত বৃক্ষ নছে ; !%,*& ভারত বর্ষের প্রায় *A*हैं : जमश्ठ ठानश् ७lgद्ध ধ্ৰুং- পরিমাণে দেখিতে 21 ७ग्रां गांग्र। श्ों জন্য ও যত্ন করিতে হয় না, এই অযত্নোৎপল্পবৃক্ষ জঙ্গলেও প্রচুর নিমগাছ। জন্মে। বোধ হয়, उष्ठ . : , C८*: প্ৰতোকৈ ই নিমগাছ বিশেষরূপে ১ চেনেন ; কিন্তু ইহার মূল চাইতে ফল পৰ্য্যন্ত . প্রতি অবয়বই যে আমাদের কত