প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/৫০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


¢lቀማ ቀs—ማ8ማ ሻ‹ፃዘ ] ] এ প্রদেশে উটজ শিল্পের উন্নতি করিতে হইলে পদ্ধতিবদ্ধভাবে কায করিতে হইবে।--যে কোন স্থানে যে কোন শিল্প লইয়া তাহার উন্নতির উপায়চিন্তা করিলে সুফল ফলিবে না । সেই জন্য আবশ্যক অনুসন্ধান করিয়া সমগ্ৰ প্ৰদেশের শিল্পসমূহের অবস্থা বুঝিয়া ব্যবস্থা করিতে হইবে। এ কথা সম্পূর্ণ সত্য। কারণ, অনেক স্থলে বহু শিল্প পরস্পর পরস্পরের সাপেক্ষা-একের উন্নতি ব্যতীত অপরের উন্নতি হইতে পারে না-একটি শিল্পের জন্যই আর একটি শিল্পের প্ৰয়োজন । পিত্তলের পণ্যের উপর এ দেশে কি না করা হয়-কাপড়ের উপর ফুল “তোলা” হয়—ইত্যাদি । এই অবস্থায় দেশের সব শিল্পের অবস্থার সম্যক আলোচনা ব্যতীত ঈপ্সিত ফললাভের সম্ভাবনা থাকিতে পারে না । সারা জন উডরফ বলিতেছেন, অনুসন্ধানের ফলে আবশুক সংবাদসংগ্রহের পর কি করা যাইতে পারে ? প্ৰধানতঃ তিনটি উপায় নির্দিষ্ট হইতে পারে।-- (১) সমিতি ব্যাবসার হিসাবে (শিল্পীর নিকট হইতে) পণ্য কিনিয়া-ক্রেতার নিকট বিক্রয় করিতে পারেন। অর্থাৎ যথাসম্ভব অল্পদরে পণ্য কিনিয়া সথাসম্ভব অধিক মলো তাহা বিক্রয় করিতে পারেন । (২) প্ৰথমোক্ত কাৰ্য্য সিদ্ধ করিবার জন্য মফঃস্বলে শাখা সংস্থাপিত করিয়া একটি সমবায়াসমিতির প্রতিষ্ঠা করিতে পারেন । (৩) র্যাহারা এই উদ্দেশ্যে কায করিতেছেন, তঁাঙ্গাদিগকে আবশ্যক সাহায্যদানের ব্যবস্থা করিতে পারেন। প্ৰথমোক্ত উপায়ে সমিতির পক্ষে সাফল্যলাভের সম্ভাবনা অতি অল্প। কারণ, তাহাতে অনেক টাকা মূলধনের প্রয়োজন । কেবল তাহাই নহে-সে কায করিতে হইলে সমিতিকে সাধারণ ব্যবসায়ীদিগের সহিত প্ৰতিযোগিতা করিতে হইবে । এইরূপ সমিতির পক্ষে দেশীয় ব্যবসায়ীদিগের সঙ্গে প্ৰতিযোগিতা করিয়া সাফল্যলাভ করিবার আশাই করা যায় না । প্ৰথমোক্ত উপায় যেমন সমিতির পক্ষে কাৰ্যোপযোগী নহে-সমিতির পক্ষে দ্বিতীয় উপায় অবলম্বন করিয়া সমবায়াসমিতিসমূহের সহিত সমडाहब कांग कब्रां ७ (डभनथे। अनश्रड । नांबू अन ठ७द्भग সমিতিকর্তৃক পণ্যবিক্ৰয়ের বিপণিপ্ৰতিষ্ঠারও পক্ষপাতী নহেন। তিনি বলেন, সমিতি অনুসন্ধান করিয়া দেশের উটজ শিল্পসমূহের অবস্থা বুঝিয়া - আবশ্যক উপদেশ প্ৰদান করুন, শিল্পসমূহের উন্নতির উপায় নির্দেশ করুন, শিল্পসমূহসম্বন্ধে পুস্তিকার ও পণ্যের মূল্য-তালিকার প্রচার YDDDS DBB BBB BBBgTD DDD DBDDB gE বিদেশে কিরূপে ভারতীয় শিল্পজ পণ্যের কাটন্তী হয়, তাহার উপায় চিন্তা করুন । আমরা সারা জন উডরফের শেষকথার সমর্থন করিতে E K SS LL DS D DDDS DBDBLBLB DDD বঙ্গের উর্টজ শিল্প। J9ዕ@ নির্দিষ্ট উপায়সমূহ অবলদ্বিত হইলেই তাহার উপকার হইবার সম্ভাবনা নাই। সমিতি উপদেশ দিলেও সে কিরূপে সে উপদেশ লইবার ব্যবস্থা করিবে ? সমিতির পুস্তিকা প্ৰচারিত হইলে ও সে তাহ পাইবে না, পাইলে ও পাঠ করিতে পরিবে না । এ দেশের পল্লীর শিল্পীরা নে প্ৰদৰ্শনীতে পণ্য KBB D DBK D KEE BB DDtuDK gD উৎপন্ন করিবে, এমন আশা করা যায় না। কাযেই সার জন উডরফের উপদেশ গৃহীত হইলে সমিতির চেষ্টা বাৰ্গই হইবে-শিল্পী তাহার মহাজনের কাছে দাদন লইয়া তাহারই ফৰ্ব্বমাইসমত পণ্য প্ৰস্তুত করিয়া কোনরূপে অন্নসংস্থান করিবে । অথচ এই যে অবস্থা, ইহার পরিবর্তন করিয়া। — শিল্পীকে কালোপযোগী ও বৰ্ত্তমান রুচির অন্যামোদিত পণা প্ৰস্তুত করিতে উৎসাহিত করিয়া তাঙ্গার অবস্থার উন্নতিসাধনই সমিতির উদ্দেশ্য । সমিতির অবলম্বিত উপায়সমাহে লাঙ্গালার উর্টজ শিল্প পরোক্ষভাবে উপকৃত হইতে পারে । কারণ, এই সব উপায় অবলম্বিত ঠাইলে বাঙ্গালার শিক্ষিত লোকের বিরকত রুচির পরিবর্তন হইবে।—তাহারা স্বদেশী পণ্যোব সৌন্দৰ্য্য বুঝিন্তে, পারিয়া আবার তাঙ্গারই বাবতার করিতে আরম্ভ করিবেন। — অবজ্ঞাত স্বদেশী পণ্য আবার আদিত হইবে । সে পরিাবৰ্ত্তন সংসাধিত হইলে বাঙ্গালীর ধরে আবাব স্বদেশী উর্টজ শিল্পজ পণ্য বিদেশী পণ্যের স্থান গ্ৰহণ কবিনে । কিন্তু তাহ। যত দিনে হইবে, তত দিনে বাঙ্গালায় আরও অনেক উর্টজ শিল্প উৎসাহের অভাবে বিলুপ্তই হইয়া সাইবে। কারণ, কোন সম্প্রদায়ের রচিপরিবাৰ্ত্তন অল্পকালে হয় না । যত দিনে সে পরিবাৰ্ত্তন সংসাপিত হইবে, তােত দিনে যদি বাঙ্গালার বহু শিল্প বিলুপ্ত হয়, তবে সমিতির উদ্দেশ্য সাধনপথ আরও বিয়বহুল হইয়াই উঠিবে। যদি ধীরে ধীরে লোকের রুচির পরিবর্তন হয়, তাহা হইলেই যে পুরাতন প্রথায় শিল্প চালাইলো লাভ হইবে।-- बांग्रांव्गांध्र शे ८-- “তঁাতি কৰ্ম্মকার করে তাহাকার সুতা জাত ঠেলে অন্ন মেলা ভার” এ অবস্থার প্রতীকার হইবে, এমন আশা করা যায় না। লোকের আচারব্যবহারের রীতিনীতির যে পরিবর্তন হইয়াছে, তাহা বিলুপ্ত হইবে না-হুইতে পারে না ; কেননা, আমাদের সমাজে ও জীবনযাপন প্ৰণালী পরিবৰ্ত্তিত হইয়াছে। সে পরিবাৰ্ত্তন আমরা মুছিয়া ফেলিতে পারিব না, কেননা, তাহা কালের গতির অনিবাৰ্য্য ফল । এ দিকে যেমন পরিাবৰ্ত্তন হইয়াছে, ও দিকে শিল্পে তেমনই কোন পরিবর্তনই Mu DK DDBS BBBBBS DDBD S DD ttt কালোপযোগী হইয়া আত্মরক্ষা করিতে পারিবে না। এ দেশে যে চুরুটের বাক্স বা রুমালের বাক্স-বিদেশী বাজারের জন্য গঠিত হয়, তাহাতে কেহ কেহু দুঃখ প্ৰকাশ কবিয়া