প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অনাথবন্ধু.pdf/৫৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


th aयंबंभ थ७-अछेब न३था । ] সনাতন হিন্দুধৰ্ম্ম । Bo পাতকগ্ৰস্ত হইতে হইত। এমন কি, ব্ৰাহ্মণে যদি গুণগত ব্ৰাহ্মণ্য না থাকিত, তাহা হইলে তঁহাকে ভিক্ষা দিলে ভিক্ষাদাতাকে রাজদণ্ডে দণ্ডিত হইতে হইত। অত্ৰি বলিয়াছেন,- অব্ৰতাশ্চানধীয়ানা যাত্ৰ ভৈক্ষ্যচর দ্বিজাঃ । তং গ্ৰামং দণ্ডয়েদ্রাজা চৌরভক্তপ্ৰদং বধৈঃ ॥ “যে গ্রামে ব্ৰত্যহীন, অধ্যয়নশূন্য ব্ৰাহ্মণ ভিক্ষাদ্বারা জীবনধারণ করিতে পায়, সেই গ্রামের লোক চোরের ভাত যোগায়, রাজা সেই গ্ৰামশুদ্ধ লোকের প্রাণদণ্ড করিবেন।” ব্ৰাহ্মণকে সংযত হইয়া পুণ্যকাৰ্য্য করিতে হইবে, শাস্ত্ৰাদি অধ্যয়ন করিতে হইবে, তবে সে ভিক্ষালাভ করিবার যোগ্যতা লাভ করিবে। অন্য স্মৃতিতে আছে যে, কুকৰ্ম্মশীল ব্ৰাহ্মণ যদি মৃত্যুমুখেও পতিত হয়, তাহা হইলেও কেহ তাহার মুখে জল পৰ্য্যন্ত দিবে না । এই সকল দেখিয়া বুঝা যায়, প্ৰাচীনকালে ব্ৰাহ্মণের পবিত্ৰতারক্ষার জন্য ঋষিরা। কতই কঠোর ব্যবস্থা করিয়াছিলেন । বৰ্জননীতিই তখন বলবৎ ছিল । ব্ৰাহ্মণ্যলক্ষণসম্বন্ধে মহাভারতের অন্যত্র লিখিত হইয়াছে, তপঃ শ্রুতঞ্চ যোনিশ্চাপ্যে। তদব্ৰাহ্মণ্যকারণম। তপস্তা, বেদধ্যয়ন এবং ব্ৰাহ্মণবংশে জন্ম, ইহাই ব্ৰাহ্মাণ্যের কারণ ; সুতরাং কেবল ব্ৰাহ্মণবংশে জন্মিলেই লোক ব্ৰাহ্মণ হয় না। ব্ৰাহ্মণ্য প্ৰধানতঃই গুণগত । যুধিষ্ঠির-নহুষ-সংবাদে যুধিষ্ঠির মনুর দোহাই দিয়াছিলেন। সেই মনু ও বলিয়াছেন,-- অনাৰ্য্যতা নিষ্ঠুরতা ক্রুরতা নিক্রিয়াত্মতা। পুরুষং ব্যজয়ন্তীহ লোকে কলুষযোনিজম৷৷ অনাৰ্য্যভাব, নিষ্ঠুরতা, ক্রুদ্রতা ও নিক্ৰিয়াত্মতা, এইগুলি মানুষের জন্মগতদোষের সুচনা করে। অবশ্য শিক্ষার দোষেও লোকের এইরূপ চরিত্রদোষ ঘটে, ইহাও শাস্ত্রকারগণ বলিয়া গিয়াছেন। কুসংসর্গের ফলে দোষ-গুণ সমস্তই সংক্রমিত হইয়া থাকে। সেই জন্য ব্ৰাহ্মণগণ শূদ্রের • সহিত ঘনিষ্ঠভাবে মিশিতে পারিতেন না । বাস্তবিক ব্ৰাহ্মণ শূদ্রকে ঘূণা করিতেন না, তবে তখন শূদ্রগণ সাধারণতঃ কুকৰ্ম্মী ছিলেন বলিয়া ব্ৰাহ্মণগণ আত্মরক্ষার জন্য তাহদের नश्डि भिभिgडन नi । যে সকল ব্ৰাহ্মণ ব্ৰাহ্মণোচিত গুণ প্ৰকটিত না করিয়া নিকৃষ্টতর গুণ প্ৰকটিত করিত এবং ক্রমশঃই যাহাঁদের বংশ গুণের হিসাৰে নিকৃষ্ট হইয়া পড়িত, তাহারাই ক্রমে Vaggat TarafaNTS KRIG I * TSR 2N ONI ; * 粟もマ何和ic更F,ー ন বিশেষোহিন্তি বৰ্ণনাং সৰ্ব্বং ব্ৰাহ্মমিদং জগৎ । ব্ৰাহ্মণ পুৰ্ব্বসৃষ্টং হি কৰ্ম্মাভিৰ্বর্ণতাং গতম। विछिन्न दीब्र बरथा विष्क्ष किङ्कुछ्रे नाशे, काव्र' नबड জগতই ব্ৰহ্মময় ৷ প্ৰথমে কেবল ব্ৰাহ্মণই ছিল, পরে কৰ্ম্ম prur bArAgassNa ܒܫ অনুসারে, তাহাদেরই বংশধরগণ বিভিন্ন বর্ণে বিভক্ত হইয়া পড়িয়াছে। একই ব্ৰাহ্মণ কোন কোন গুণে কোন কোন জাতিতে পরিণত হইয়াছে, ভৃগু তাহাও সুন্দরভাবে বলিয়াছেন । আমরা ভৃগুর কথাগুলিনিয়ে উদ্ধত করিয়া দিলাম,- কামভোগপ্রিয়ান্তীক্ষা ক্ৰোধনাঃ প্ৰিয়সাহসাঃ । DBDDBDBDSBBDDYDLD YBLOODOB DBBL গোভ্যঃ বৃত্তিং সমাস্তায় পীতাঃ কৃষুপজীবিনঃ । স্বধৰ্ম্মান্নানুতিষ্ঠন্তি তে দ্বিজ বৈশ্যতাং গতাঃ। হিংসা নৃতপ্ৰিয় লুন্ধাঃ সৰ্ব্বকৰ্ম্মোপজীবিনঃ । কৃষ্ণাঃ শৌচ পরিভ্রষ্টাস্তে দ্বিজাঃ শূদ্ৰতাং গতাঃ ॥ ইতোতৈ কৰ্ম্মভিৰ্যন্ত দ্বিজা বৰ্ণান্তরং গতাঃ। ধৰ্ম্মে যজ্ঞক্রিয়াং তেষাং নিত্যং ন প্ৰতিষিধ্যতে ॥ ইতোতৈ চতুরো বর্ণা যেষাং ব্রাহ্মী সরস্বতী। বিহিত ব্ৰহ্মণ পূৰ্ব্বং লোভাত্বজ্ঞানতাং গতাঃ। যে সমস্ত ব্ৰাহ্মণ কামভোগে আসক্ত, উগ্ৰস্বভাব, ক্রোধী, সাহসিক, স্বধৰ্ম্মত্যাগী ( ব্রাহ্মণ্যধৰ্ম্মত্যাগী) ও লোহিতাঙ্গ অর্থাৎ রজোগুণময়, তাহারাই ক্ষত্ৰিয় হইয়া পড়িল । আবার যাহারা গো-সমূহ হইতে জীবিকা অর্জন ও কৃষি BDBBD DBDBBBS DD KBD DBDDD DBD D gE যাহারা পীতবর্ণ অর্থাৎ রজস্তমোগুণান্বিত হইল, তাহারাই বৈশ্য হইল। ইহার পর যে সমস্ত দ্বিজ হিংসারত ও মিথ্যাপ্ৰিয়, লোভী, সব কাজেই আত্মনিয়োগ করিল অর্থাৎ যাহাঁদের অকরণীয় আর কিছুই রহিল না, তাহারা কৃষ্ণবৰ্ণ অর্থাৎ তমোময় শূদ্ৰবৰ্ণ হইল। এইরূপে কৰ্ম্মদ্বারাই ব্ৰাহ্মণরা ভিন্ন ভিন্ন বর্ণে বিভক্ত হইয়াছে। তঁহাদের যজ্ঞক্রিয়াদি ধৰ্ম্ম করিতে কোন নিষেধ নাই । দ্বিজাতিগণ চারিবর্ণে বিভক্ত হইলেও সকলেরই পুর্বে বেদে অধিকার ছিল, কেবল যাহারা লোভহেতু অত্যন্ত অজ্ঞান হইরা পড়িল, তাহদেরই বেদে অধিকার নষ্ট হইল । পাঠক দেখুন, একমাত্ৰ ব্ৰাহ্মণজাতি হইতেই চারিবর্ণের আবির্ভাব হইয়াছে, ইহাই প্ৰাচীন মত। শূদ্র অনাৰ্য্যজাতি, ইহা আৰ্যমত নহে। ] উদ্ধৃত অংশ হইতে প্ৰতীয়মান হইতেছে যে, প্ৰাচীনকালে ব্ৰাহ্মণ জাতিকে সত্ত্বগুণ প্ৰধান রাখিবার জন্য বিশেষ চেষ্টা ছিল । যে সকল ব্ৰাহ্মণ ব্ৰাহ্মণ্য হরাইতেন, তঁাহারা DYKD DD DBBBL DBDD BBDD S S DLEBB হইতেই সকল বৰ্ণাশ্রমীজাতির উৎপত্তি হইয়াছে। সেই ZYS S DBDBBD SDBBKuS S D L SLKLDBBDS DB D उांशांद्र श्रीब्र दर्डानन्ौङिद्र कदृष्ण पे बांक्रं श्रेण्ड नांनांखांछिब्र উদ্ভব হইয়াছে। ব্ৰাহ্মণদিগের কতকগুলি অধিকার দেখিয়া য়ুরোপীয়গণ মনে করিয়া থাকেন যে, ব্ৰাহ্মণরা জাতিহিসাবে সেই অধিকারগুলি আগুলিয়া বসিয়া আছেন। কিন্তু ৰাস্তবিক তাহা নহে। অনেক লাভজনক কাজ. ব্ৰাহ্মণের পক্ষে করা অত্যন্ত নিষিদ্ধ। কতকগুলি কাজ করিলে