পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/২৯৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


' !.!. পৰ্ব্বত। তাৰে তুমি থাক, আমি 5C নারদ। - আরো পাগল ! রাগ করে না, তনয়াকে ব’ল যে, পৰ্বত আর তার কটু শুক্ত, তিক্ত ঝোল, কষায় অম্বল গালে তুলবে না। ; আর সেই সুস্বরগরবিনী বহুভাষিণী বুমাকে ব’ল । যে, তার পর্বত, আর তার অমৃতোপম উচ্ছেভাতে চেয়ে খাবে না | নারদ। তবে তুমি একান্তই যাবে ? পৰ্ব্বত। তুমি আমার সঙ্গে যাবে না ? নারদ । যেতে পারি, তবে আজ কেমন ক’রে যাই ? রমা। আজ পরিচর্য্য করবে, কাল করবে সুকুমারী। আমি প্রতিশ্রত আছি। ! অন্ততঃ এ দুদিন ত যেতেই পারি না। তুমি যদি একান্তই যেতে চাও, যাও ; ঠাকুরকে আমার প্রণাম জানিও । পৰ্ব্বত। দেখ, সুকুমারীকে ব’ল, যেন সে আমার সব দোষ ভুলে যায় । नीला । चांप्रे । পৰ্ব্বত । আর রামাকে ব’ল, আমার সঙ্গে আর তার দেখা হবে না । নারদ। আচ্ছা । পৰ্ব্বত। আর দেখে তারে ব’ল, সে যদি কখন গোলকে যায়, তাহলে আমার সঙ্গে একবার দেখা হ’লেও হ’তে পারে। এত কাল ত তার খেয়েছি, কি বল মামা ? ? নারদ। তাত বটেই, তাত বটেই। : পৰ্ব্বত। ভাল একথাও তারে ব’ল, গোলোকে গিয়ে সে যদি আমায় ডাকতে | পাঠায়, তা হ’লে না হয় একবার তার কাছে । যেতে পারি। স্বৰ্গে আর মান অপমান কি, | পৰ্ব্বত। তুমি সেই তম:পূর্ণ হৃদয়া সৃজয়- ] | ८°ांब्लक । ফেল । পৰ্ব্বত। দেখ মামা ! রমা। নারদ। তাত বটেই-তাত বটেই। : পৰ্ব্বত। তাহ’লে তুমি আর শিগগির নারদ। কি কার-প্রতিশ্রত হয়েছি। ! পৰ্ব্বত। প্রতিশ্রুত ত রোজই হচ্চি। প্রতিশ্ৰত হ’তেও ছাড়বে না, আর ঘরেও ফিরিবে: না ! তোমার মতলবটা কি বল দেখি ! তুমি কি এখানে আর একটা গোলকধাম ! दगांउ 5७ ? নারদ। যেখানে আত্মার তৃপ্তি, সেইখানেই আমি এদের সেবায় পরম। পরিতুষ্ট । সুতরাং এখানে গোলক বসানটা কিছু বিচিত্র নয় । ' .. । পর্বত। একি ? পেছন ফিরতে তোমার দেরি সয়না দেখচি যে ! নারদ । নাও, কি বলবে, শিগগির বলে আমার খিদে পেয়েছে । . পৰ্ব্বত । আজ রমান্ব পালা, তাই মামার ক্ষুধার মাত্ৰাটা কিছু বেড়েছে। কেমন না মামা ? আচ্ছা বল দেখি, কার হাতের রান্না ভাল ? ? নারদ। সুকুমারীর রান্নাটাই কিছু মধুর লেগেছে । ] 翰 পৰ্ব্বত । ফেললে ! / নারদ। রমা ব্যঞ্জনে বড় ঝাল দেয় । , . ५६३ ऊ মামা, মিছে কথাটা কয়ে পৰ্ব্বত। রান্নার মজা যা কিছু তাত ওই क्षांप्नई । তুমি বুড়ো হয়েছ, তোমার कि আর | স্বাদ বোধ আছে ? ' ' ' নারদ । আচ্ছ। তাই হ’ল-এখন কি बब्बार्डछ्ळि दळीं । ・ যদি আমার প্ৰতি ভূত্যের মত ব্যবহার না করত, তাহ’লে