পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৩৮৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


क्रम कन्नcछ । কিন্তু কি করলুম। তাজ? উভয় | রাজ্যের মঙ্গল কামনায় আমি নীরবে যে কাৰ্য্য | সাধন করতে গিয়েছিলুম, কোন দূরদৃষ্ট সে নীরব আয়োজন রণ-কোলাহলে পরিণত হ’ল ? ওঠ-বিজাপুররাজ । খোদার অভিলাষ পূর্ণকর। আদিল । কি কুক্ষণে আমি তোমার শক্তিমত্তায় সন্দেহ ক’রেছিলুম ? সেই সন্দেহের ফলে করলে-প্ৰেম তীব্র শক্রিতায় পরিণত হ’ল ! bाग । cथभ-द्रि निग्ने c2भ-नदকাদম্বিনীর সলিলাঞ্জাল মৃত্তিকায় পড়ে পন্ধিল হয়। প্রেমের নিন্দ ক’র না। রাজা, অদৃষ্টর নিন্দ কর । এস তাজ ! রক্ততরঙ্গিনীতে সাতার দিতে দিতে যদি আৰু জিঙ্কত প্ৰেমাস্পদার সঙ্গে মিলতে চাও, তাহলে সঙ্গে এস। পৰ্ব্বত । যশোদা ও রঘুজী। - যশোদা। পৰ্ব্বত শিখরে আলো জলছে, কিন্তু সমস্ত তলদেশটা অন্ধকার! ভীমার জলে সুধু একটা ক্ষীণ আলো প্রতিফলিত হচ্ছে। তাতে অন্ধকার আরও নিবিড়-ভেতরে যেন । শয়তানের লীলা। একি রঘুজী ! ভীমার উভয় পারে দুই প্ৰতিদ্বন্দ্বী রাজার বিশাল সৈন্য। কিন্তু সকলেই যেন মৃত্যু-নিদ্রায় নিস্তব্ধ ! এ কি যুদ্ধ? ব্যাপার ত কিছুই বুঝতে পারছি না। : রঘুজী। ব্যাপার অজাযুদ্ধ। শালা সম্বন্ধীর । লড়াই-ও ক্ষুধু বৃহবারম্ভ-কাজ বড় কিছু হবে। বলে ত বোধ হচ্ছে না। । प्*ांl । स्थांशांद्र शनी श्फ् घ्श्व् श् উঠেছে-ব্যগ্রতার সহিত রাজা সৈন্য সম করতে अॉरङ्ग* দিলেন, কিন্তু এত কথাতেই পরিণত হ’ল। , রঘুজী। যা হবে কাল প্ৰভাতেই বোঝা যাবে। : যশোদা। আমাদের যে মাওলী সৈক্স, , তাদেরও ত কোন খবর পাচ্ছি না ! ! রঘুজী। তারা যেখানেই থাক না কেন, , তারা কিন্তু নিদ্রিত নয়। যশোদা। তারা কোথায় ? * : রঘুজী। কোথায়-এ অন্ধকারে কেমন । ক’রে ঠাওর করব ? : ; : যশোদা । ঠাওর করতে হবে । আমি তাদের অবস্থান না জেনে নিশ্চিন্ত হ’তে পারছি না। --এস আমার সঙ্গে । - রঘুজী। তোমার সঙ্গে কোথায় যাব ? : যশোদা । কেন, ভয় হচ্ছে না কি ? রঘুজী। নিৰ্ম্মম বাক্য প্রয়োগ ক’র ১২%" মা । এখনও কি তোমার সন্দেহ গেল না ? তা যদি না যায়, বল এখনি ওই পাহাড়ের শৃঙ্গটার উপরে উঠে ঝাপ খাই । যশোদা । না রঘুজী । কথাটা অন্যায় বলে । ফেলেছি । মনে ক্ষোভ করা না ! ! கர রঘুজী। তোমার উপর ষে ক্ষোভ করবার । যো নেই মা । কিন্তু মা যে বীরত্বাভিমানী । পুরুষ রমণীর কাছে পরাস্ত হয়ে জীবিত থাকে, । তার বেঁচে থাকা যে ক্ষোভের বিষয় তাতে । সন্দেহ নাই। বাপ, । মনের কোণে মূহূৰ্ত্তমাত্র সময়ের জন্যও | স্থান দিয়ে না যে, তুমি এক অবলার কাছে । হেরে গেছ। শক্তিমান। যতই তোমাদের গ | শক্তি থাক না কেন, অবলা যখন সতীত্ব । গৌরব নাশ ভয়ে, মনে মনে সৰ্ব্বশক্তি বেশ | রূপা শঙ্করীর শরণাপন্ন হয়, তখন তার হৃদয় ।