পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৩৯১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্থ অঙ্ক ৬৫ ৷ ঝাপ দিতে বলি, তারা তর্ক না ক’রেই আগুনে ঝাপ দেবে। আমার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক নেহাঙ খ্যা পৰ্যন্ত জানে না। কেউ জানতে ; পারত না, তুমি মা ব’লে জানতে পারলে। আমি তোমার কাছে ভূত, কিন্তু নেহাঙ খাঁর } পলটনে পরাক্রান্ত সৈনিক। একেবারে বিশ হাজার সৈন্য’ত একজন লোককে আক্রমণ করতে পারে না । মা ! তহ’লে আর দাঁড়ালুম ਸঅামি প্রভুর সন্ধানে চলুম। যশোদা। রঘুজী। ওই শত্রু শিবিরে । অ্যালো জললো। রজনীর অন্ধকারের সহায়তায় ! সরদার হামিদ অসংখ্য বিজাপুরী সমবেত | করেছে। দেখতে পােচ্ছ না ? বোধ হয় পলটন । আমেদনগর বিজয়ে অগ্রসর হ’ল। এই রাত্রেই | বিজাপুরী নদীপার হবে। রাজার মৰ্যাদা ও } স্বামীর প্রাণ । কোনটা রক্ষা করতে অগ্রসর ट्रै' ष्ठ 5७, भीष्च छ्& ।। ཆ, রঘুজী । ও দুইই কৱব-চলে এস মাচলে এস । কারা আসছে।-শস্ত্ৰ পাহাড়ের অন্তরালে আশ্রয় গ্ৰহণ করা। আমি আর | দাঁড়ালুম না-দাড়াতে পারলুম না। যশোদা । তুমি আমার কথা ভেব না, } শীঘ্ৰ যাও-স্বামীকে আমার রক্ষা কর। i [ রঘুজীর প্রস্থান ] তাইত লোকটা এই দিকেই আসছে যে। " (ইব্রাহিমের প্রবেশ ) ইব্রা। আশ্রয়ে কুলুচ্ছে না যোশীবিবি ! | এবারে সজাগ প্রহরী জেগে আছে। চতুর্দশ । বৎসরের নিদ্রা-তোমরা অত্যাচার ক’রে | ভাঙ্গিয়েছ। এক দীর্ঘ যুগের পর জাগুৰিত | ক্ষুধাৰ্ত্ত চক্ষু চারিদিকে আহারের অন্বেষণে রূপ || ; খুঁজে বেড়াচ্ছে। পালাবে কোথা ? ? সমস্ত আমেদনগরী নিদ্রিত-শ করবার এতটুকুওত চেষ্টা দেখছি না\ ? / ইব্রা। ও তুমি দেখ, আর তোমার স্বামী দেখুক-আমি তোমাদের দেখি। f যশোদা। কেন জাহাপনা, আমেদনগরে দেখবার কি আর বস্তু নেই! ইব্রা । আর সব গুরুপাক । যোশীবিবি । হজম হয় না। দেখতে গেলে চোক ঝলসে 'शक्षुि । যশোদা। জাহাপনা ! আমার স্বামী বোধ छ् दिश्रम्र ! ইব্রা । বোধ হয় কেন যোশীবিবিনিশ্চয়। সুধু কি তোমার স্বামী-আমিওত তোমাদের সঙ্গে সঙ্গে বিপন্ন-আমার বিপদে তুমি যে স্বামীর বিপদের চেয়ে কম দুঃখিত তা ত নয়। কুিন্তু সুন্দরী ! আমি তাতে অনু মাত্র দুঃখিত নই। আমি যখন ঘুমিয়েছিলুম, তখন খোদা অভয় বাহু বিস্তার ক'রে আমার রাজ্য রক্ষা করেছে। তোমাদের কৃপায় যেই জেগে, নিজ তরীর হাল নিজ ধরতে গেছি, অমনি চেয়ে দেখি নদীতে প্ৰচণ্ড তুফান । উপরে চেয়ে দেখি যোশীবিবি, সে অভয় বাহু অন্তহিত হয়েছে। বলত সুন্দরী, আমি কি আবার একবার ঘুমুব ? আমাকে বিপদে ফেলে সমস্ত সরদার পালিয়েছে। বিজাপুরের রাজা নিজের ভুল বুঝে দূত দিয়ে সন্ধি করতে পাঠিয়েছিলেন, তাঁকে আমার অসাক্ষাতে অপমান করে তাড়িয়ে দিয়েছে। (মল্লাজীর প্রবেশ) অথচ যুদ্ধ করতে কেউ নেই। সমস্ত সৈন্য । তাদের হাতে। ] মল্ল। জাহাপনা ! ! যশোদা। এই যে-এই যে সরদার । যশোদা। এ কি দেখছি জাহাপনা'! ' এসেছেন ? আমি আপনার বিপদের আশঙ্কা ।