পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৪০৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পৌঁছান। ত আমার দুঃসাধ্য হয়ে উঠল! এরূপ অপূৰ্ব্বভাবে শিক্ষিত সৈন্যত আমি আর কখন দেখিনি-এরা হেরেও হারিতে চায়না। আমাদের সৈন্য যতই সাহসী হক, যতই ক্ষিপ্ৰগতি, যতই রাণকুশল হক এরূপ যুদ্ধত তারা জানেনা। পরাস্ত হলে ভগ্ন হৃদয় হয় না, সেনাধ্যক্ষ মরলে যুদ্ধ" | জয়ে হতাশ হয় না, এমন সৈন্য’ত a আমি কখন দেখিনি। সৈন্যের পর সৈন্য মরছে, আবার । কোথা থেকে সৈন্য এসে তার স্থান অধিকার } করছে । সেনাপতির পর সেনাপতি মরছে, কোথা থেকে নূতন বীর আবির্ভূত হয়ে, সওয়ারশূন্য অশ্বে আরোহণ ক’রে, আবার সেনাদের উৎসাহিত করে যুদ্ধ করছে। যেন কেউ মরেনি, যেন কোন অনিষ্ট হয়নি। কি ধীরতার সহিত সংগ্রাম -এমন অপূৰ্ব্ব নীরব আত্মরক্ষারণোন্মত্ত সৈন্যের এমন ধীর অবস্থান, আমি কখন স্বপ্নেও দেখবার আশা করিনি। যুদ্ধ করে আমার জীবন সার্থক হ’ল । (হামিদের প্রবেশ ) হামিদ। জাহাপনা। শীঘ্ৰ আৰু নআমরা উপর অধিকার করেছি। শত্রর ধৰ্ম্মক নিস্তব্ধ । আদিল। পালিয়ে নিস্তব্ধ, না নিঃশেষে নিস্তব্ধ ? হামিদ। যুদ্ধের অবস্থা দেখে বুঝতে পারলেন না জাহাপনা, ও সব বীর কি পালিয়ে নিস্তব্ধ হয় ? সমস্ত নিঃশেষে নিস্তব্ধ হয়েছে। : আদিল। এরকম সৈন্য পেলে আমি সমস্ত হিন্দুস্থান জয় করতে পারি। - 邻 হামিদ। গোস্তাকী মাফ হয়-গোলাম পেলে দুনিয়া জয় করতে পারত। কিন্তু জাহ পনা পেয়েও কিছু করতে পারলেন না। | হাসতে হাস*** S হামিদ। গোলাম কি আর জাহাপনার সঙ্গে মিথ্যা কইছে! পেয়েছিলেন, কিন্তু আমাদের দুৰ্ভাগ্যবশে আপনি তাদের ধ্বংস করেছেন। ; আদিল । আমি-এরূপ বীর সৈন্য ধ্বংস । করলুম ? কি বলছ হামিদ ? : হামিদ । জাহাপনা, আজ যাদের সঙ্গে । যুদ্ধ ক’রে আমরা কৃতাৰ্থ হয়েছি, তারা সমস্তই সরদার মালোজীর মাওলী সৈন্য । । আদিল। বুঝতে পেরেছি। কিন্তু সরদার, । যতদিন মালোজী বিজাপুরে ছিল, ততদিন তার সৈন্যের কৌশল আমাকে এক দিনের জন্যও দেখায়নি । হামিদ । দেখবার প্রয়োজন কবে হয়েছিল, তা দেখাবে ? আদিল । প্রয়োজন। যথেষ্ট হয়েছিল, সে ইচ্ছাপূর্বক আমাকে দেখায়নি। शंभिन । ऊ शाहे झं'क, आँश्रन्नाद्र ऊछ | শিক্ষিত সৈন্যদল, আপনিই আমেদনগরে নির্বাঁ সিত করেছিলেন -শেষে আপনিই তাদের ধ্বংস করলেন । । আদিল। নিয়তির পরিহাস এ হ’তে আর কি হ’তে পারে ? কিন্তু হামিদ, সে আমার জন্য এ অদ্ভুত সৈন্যদলের সৃষ্টি করেনি। স্বদেশভক্ত। মাৰ্হাট্টাবীর স্বদেশ রক্ষার জন্য এই নব সৈন্যসম্প্রদােয় গঠিত করেছিল। আমি বিজাপুরে দেখেছি, মালোজী এক থানা কাগজ নিয়ে। মাঝে মাঝে কি কালীর অ্যাচড় কাটত । এক দিন কৌতুহলী হয়ে তাকে নিঞাসা ক’রে- ছিলুম-“সরদার। পাগলের শতন বসে, কাগজের ওপর কি ও নিৰ্কে চিহ্ন অস্থিত কর" । আপনিত শুনে। তুষ্ট হবেন না। জাহাপনা আদিল। আমি পেলুম কবে হামিদ ? 1 আৰু আমি তাকে সনির্বন্ধ অনুরোধ করি