পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৪৯৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


, mmmmmmunum . . ' ' , কিন্তু এখনও ত বন্ধুবর বহু দূরে লিলি । করিতেছেন ? এতক্ষণ কি করিয়া নীরব থাকি বেন! তাই বলিলেন, “তোমাদের বক্তব্য কি ? তোমাদের কথা আমি এক বর্ণও বুঝিতে अहिङछि ना। সাক্ষী। আমি বুঝাইয়া দিতেছি ! - নিরঞ্জন। তুমি কে ? 1 : সাক্ষী। আঞ্জে, আমি প্ৰাংশু লভো ফলে লোভদ্ৰাহুরিব বামনঃ । আপনি হাকিম জাতির ড্যানিয়েল । সুতরাং আমি আপনি বুঝিয়া লউন আমরা ককেন্সিয়ান জাতির ইণ্ডো-এরিয়ান শাখা। আমাদের পেশার কথা শুনিলে আপ নার চক্ষে জল আসিবে । আমাদের এক প্ৰস্তুত পুৱাণে পিশিয়াছে, এক প্ৰস্তুত ইতিহাসে । পিশিয়াছে, শেষে প্রত্নতত্ত্ববিদে পিশিতে আরস্তু করিয়াছে। আমরা জীবদ্দশায় সাহেবের লাথিতে পিষ্ট হইতেছি, মরিলেই খ্যাতি-রস পান । আমাকে প্রহার করিয়া আনন্দ লাভ করিবেন। করিয়া সংবাদপত্রের কলেবর পুষ্ট করিব। - নিরঞ্জন । তুমি আমার সম্মুখ হইতে দূর হইয়া যাও । না যাও ত, পাহারাওয়ালা ডাকাইয়া দূর করিয়া দিব। সাক্ষী । আজ্ঞে তাই দিন। নহিলে | আমি নিজে যে যাই, সেরূপ একটা চেষ্টা । দেখিতে পাইতেছি না। আমাকে প্রহর। করুন, অথবা পাহারাওয়ালার সেই দুৰ্ব্বল-নাশন বেটন দিয়া আমার অস্থিপঞ্জর ভাঙ্গিয়া দিন। আপনাকে দেখিয়া আমার প্রাণে একটা প্ৰবল ৷ . . . . . | ইনিই প্ৰথমে “কই” থালি ছিড়িয়া পথে খাই । পলায়ন-নদীতীরে । পৌছতে পারিতেছি at . भूर्थनाछ। ছে। আমি সেই ভক্তিতরঙ্গ ঠেলিয়া । --সাক্ষার হাতনাড়া, | | করিয়া এর হাত হইতে নিস্তার পাই ? : দিকে চাহিয়া বঢ়ি সাক্ষী দুই একটা টোক গিলিয়া গিলিয়া । আবার আরম্ভ করিল।-“তবে এইমাত্র অনু: | রোধ আমার উপর ক্ৰোধ । করিবেন। না। আমি । কেবল সাক্ষী, আসামীও নই, ফরিয়াদীও নই। শুধু সাক্ষী-হতভাগ্য সাক্ষী। আমি বামন, - । আর তিনি ঝাউগাছের ফল । আমি মৌৱলা, | আর তিনি বড় কানকোময়ী “রুই” । কাজেই এ ভাগ্যহীন খাটি গদ্য হইতে আপনি নিরুদ্বেগের - সনন্দ পাইতে পারেন। তাহার উপরে আপনার ও আমার ভিতরে একটা বন্ধনীর আবির্ভাব। হইয়াছে। কবি কালিদাস বলিয়াছেন- “ নিরঞ্জন । “কি পাষণ্ড ! আবার কবিতা ?’ ” এই বলিয়াই তাহার মস্তকে প্রহার করিবার জন্য : যষ্টি উত্তোলন করিলেন । , সাক্ষী। আজ্ঞে কবিতা-এখন প্রহার করিবেন না। আর একটু অপেক্ষা করুন । কবিতা শুনিলে ও তাহার অর্থ বুঝিলে আপনি | তখন আপনি যতই মারিবেন ততই আপনার আনন্দ বাড়িবে। যাবজীবন এই পৃষ্ঠে ছড়ি | পড়িলেও আপনার হাতে ব্যথা হইবে না। কবিতাটি এই ;-“সম্বন্ধ মালাপনপূর্দমাহ ।” অর্থাৎ আলাপ করিবার পরেই সম্বন্ধ। আপনি যে দণ্ডে আলাপ করিয়াছেন, তার পরীক্ষণেই | সম্বন্ধী হইয়াছেন। সুতরাং কোন দিকেই আমা । হইতে আপনার অনিষ্টের আশঙ্কা নাই। তবে । | ইহাদের মধ্যে এই বাবুলীই দোষী । -কেননা । . . . “কি আমি দোষী ?” এই বলিয়াই প্ৰথম | ক সাক্ষীর পৃষ্ঠে একটা মুষ্ট্যাঘাত করিল। তা ন সাক্ষী সম্মিতবদনে নিরঞ্জনের মুখের । ল-“এই দেখুন দুর্ভাগ্যবশতঃ ।