পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৫৩৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আর বুঝল, হিন্দু রমণীর পতি ভিন্ন গতি । নাই। তাহার পিতৃতিরস্কারে ও তাঁহার নিজের । অবজ্ঞায়ী স্বামীর গৃহত্যাগের ছবি জীবন্ত হইয়া । তাহার মনে জাগিয়া উঠিল। অপমানিত স্বামী । আর ফিরল না, তাহার তেজোগৰ্বের মূলে ; কুঠারাঘাত করিতে, সে আর তাহার সংবাদ । না। আর একটী বিশেষ দুঃখ, লাইল তাহার “সবে ধন নীলমণি” কন্যা কাননিককে আর কেহ তাহার মত করিয়া ভালবাসিল না। এইটিই তাহার বিশেষ দুঃখ। নিরঞ্জন কাননিকাকে যথেষ্ট ভালবাসে। কিন্তু তবুও কেমন তাহাতে ভামিনীর তৃপ্তি হয় ন্যা । সে ভালবাসায় তরুলতা নাই। কাননিকার মুখে পড়িয়া প্রতিফলিত হইয়া সে ভালবাসা তাঙ্কার হৃদয়ে প্ৰবেশ করে না। বিশেষ করিয়া অনুভব করিয়াছিল। ভামিনী হরিদাসীর কাছে প্ৰতিকার প্রার্থনা করিল। হরিদাসী প্ৰতিকারের আশ্বাস দিল । বলিল, “রোস, আগে তোর মেয়ের স্বয়ম্বর ব্যাপার মিটিয়া যাক, তোর বাপের তেজ ভাঙ্গিয়া যাক, তার পর যা হ’ক একটা উপায় করিব।” হরিদাসী তাহাকে কাননিকার ঘর দেখাইয়া | দিতে বলিল। ভামিনী নিজে সঙ্গে করিয়া কাননিকার কাছে লইয়া যাইতে চাহিল। হরিদাসী নিষেধ করিল,-বলিল, “আমি যাইব ।” কাননিকার গৃহে প্ৰবেশ করিয়া দেখিল, Հ|*} কাননিকা কি করিতেছে। পা টিপিয়া পা টিপিয়া: | তাহার পশ্চাতে গিয়া দাড়াইল । কাননিকা । জানিতে পারিল না, আপনার মনেই লিখিতে লাগিল। লেখা শেষ করিয়া কাননী, আপনার মনে যে কথা গুলি কহিতে লাগিল, হরিদাসী | সব শুনিল। তবে পর যেই কাননিকা কবিতাটী এই অভাবটী সে } 'h' ছিড়িতে উষ্ঠত হইল, অমনি তার হাত ধরিয়া । ফেলিল। কাননিকা পাছু ফিরিয়া দেখে- | হরিদাসী ঠানদিদি। সমস্ত কথা শুনিয়ছে । ভাবিয়া লজ্জায় ও ভয়ে বালিকাৰু মুখ শুকাইয়া । গেল। : হরিদৗসী কাননিকার ভাবান্তর বুঝতে । পরিল, এবং সেই জন্য তাঁহাকে আবার পূর্বভাবে আনিবার জন্য বলিল,-“দেখি দিখি, । সংসার-সাগরে ঝাপ দিবার । বল তোর আছে । কি না। আমার হাত ছাড়াইতে পারিলে বুঝিব । তুই পরীক্ষায়ু উত্তীর্ণ হুইবি, বরের ঝাক হইতে , { মনোমত স্বামীটী বাছিয়া লইবি । দুই জনে । সাত্যারিয়া কুলে উঠিবি।” কাননিকা হাসিয়া । ফেলিল। বলিল, “আমি যে হার মানিলাম । ঠানদিদি ! তোমার হাত তা ছাড়াইতে পারি।-- लभ भा ।” - । হরিদাসী। তবে আর স্বয়ম্বর সভায় যাইয়া “কি করিবি ? সেখানে স্বামীটীকে ত পাইবিই - না, শেষে কার গলায় মালা দিতে কার গলায় । মালা দিবি। আমার বন্ধটাও যে তোকে বে। করিবার জন্য আসিয়াছে। । কাননিকা। ঠাকুরদাদা আসিয়াছে পাণিগ্রহণ করিতে, ঠানদিদি হাত ধরিল কেন ? : ; হরিদাসী। তোর হাতে আর কেহ হাত দিয়াছে কি না পরীক্ষা করিবার জন্য। - কাননিকা । আর কেহ এ হাতে হাত দিলে, ঠানদিদির বর কি আমায়ু লইবে না ?-- ভাল পরীক্ষায় বুঝিলে কি ! , । হরিদাসী। বুঝিলাম, কাননিকার হাত দুর। হইতে কে ধরিয়াছে। কাননিকা তাঁর ঠান দিদির কাছে সে হাতের মালিককে গোপন করিবার জন্য মন-ভুলানি হাসি হাসিয়া, তাহাকে ভুলাইবার চেষ্টায় আছে। :