পাতা:অনুরাধা - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৭৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


माछा স্ত্রীর মধুর কণ্ঠ কানে গেল, তুমি কোন দুঃখে আত্মঘাতী হবে ? যে হবে সে একদিন জগৎ দেখবে । এইখানে হরিশের একটু পূৰ্ব্ব বৃত্তান্ত বলা প্রয়োজন। এখন তাহার বয়স চল্লিশেয় কম নয়, কিন্তু কম যখন সত্যই ছিল সেই পাঠ্যাবস্থার একটু ইতিহাস আছে। পিতা রামমোহন তখন বরিশালের সবঙ্গজ, চুরিশ গ্রন্স এ পরীক্ষার গড় তৈরি করিতে কলিকাতার মেস ছাড়িয়া বরিশালে আসিয়া উপস্থিত হইল। প্রতিবেশী ছিলেন হরকুমার মজুমদার। স্কুল-ইন্সপেক্টর। লোকটি নিরীহ, নিরঙ্কার এবং অগাধ পণ্ডিত । সরকারী কাজে ফুরসৎ পাইলে এবং সদরে থাকিলে মাঝে মাঝে আসিয়া সদর আলা। বাহাদুরের বৈঠকখানায় বসিতেন। অনেকেই আসিতেন । টকওয়ালা মুক্ষে, দাড়ি ছাটা ডেপুটি, মহাস্থবির সরকারী উকিল এবং সহরের অন্যান্য মান্য-গণ্যের দল সন্ধ্যার পরে কেহই প্রায় অনুপস্থিত থাকিতেন না । তাহার কারণ ছিল। সদর আলো নিজে ছিলেন। নিষ্ঠাবান হিন্দু। অতএব, আলাপ-আলোচনার অধিকাংশই ফুইত DE DBBBZSS gD BDDD DBDDD DDS DDD DBBB DBDDS তত্ত্বকথার শাস্ত্রীয় মীমাংসা সমাধা হইত খণ্ড যুদ্ধের অবসানে। ] BD DD DBDDB DBDBB BBBB DBD BDDD DDD ছড়িষ্ট হাতে করিয়া আন্তে আস্তে আসিয়া উপস্থিত হইলেন। এই সকল যুদ্ধ-বিগ্ৰহ ব্যাপারে কোনদিন তিনি কোন অংশ গ্ৰহণ s W