পাতা:অনুরাধা - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অনুরাধ রায় বাহাদুর ভাবী বৈবাহিক মৈত্র মহাশয়ের হিন্দুধৰ্ম্মে প্ৰগাঢ় নিষ্ঠার পরিচয় দিলেন, এবং ইংরাজি শিক্ষার সংখ্যাতীত দোষ কীৰ্ত্তন করিয়া অনেকটা এইরূপ অভিমত প্ৰকাশ করিলেন যে, তঁহাকে হাজার টাকা মাহিনীর চাকুরী দেওয়া ব্যতীত ইংরাজের আর কোন গুণ নাই। আজকাল দিন-ক্ষণ অন্যরূপ হইয়াছে, ছেলেদের ইংরাজি না পড়াইলে চলে না, কিন্তু যে-মুর্থ এই স্লেচ্ছ বিদ্যা ও স্লেচ্ছ সভ্যতা হিন্দুস্ত্ৰ শুদ্ধান্তঃপুরে মেয়েদের মধ্যে টানিয়া আনে তাহার ইহকালও নাই পরকালও নাই। : ) একা হরকুমার ভিন্ন ইহার নিগুঢ় অর্থ কাহারও অবিদিত রছিল না। সেদিন সভা ভঙ্গ হইবার পূৰ্বেই বিবাহের দিনন্থির DBDD DBBS gDD gBDBB LDuDBDBDBB DDD DBBD DBB DDD না। কন্যাকে শ্বশুর-গৃহে পাঠাইবার প্রাক্কালে মৈত্র গৃহিণী --নিৰ্ম্মলার সতী-সাধবী মাতাঠাকুরাণী-বধূ জীবনের চরম তত্ত্বটি মেয়ের কানে দিলেন, বলিলেন, মা, পুরুষ মানুষকে চোখে চোখে না। রাখলেই সে গেল। সংসার করতে আর যা-ই কেননা ভোল কখনো এ কথাটি ভুলোনা । অঁাহার নিজের স্বামী টিকির গোছা ও শ্ৰীগীতাক মৰ্ম্মার্থ লইয়া মাতিয়া উঠিবার পূর্ব পর্যন্ত তঁহাকে অনেক জাঃ ইয়াছেন। আজিও তঁহার দৃঢ় বিশ্বাস, মৈত্র বুড়া চিতায় শয়ন না করিলে আর তাহার নিশ্চিন্তু হুইবার যো নাই। ୩୫