পাতা:অনুরাধা - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উপস্থিত হইল। তথন কত লোকে যে তাহাকে অভিনন্দিত কৱিগ তাহার সংখ্যা নাই! ব্ৰজেন্দ্র বাবু সখেদে কহিলেন, ভাই হরিশ, ন্ত্রৈণ বলে তোমাকে অনেক লজ্জা দিয়েছি মাপ কোরো। লক্ষ কেন, কোটী কোটীর মধ্যেও তোমার মত ভাগ্যবান নেই, তুমি ধন্য। ভক্ত বীরেন বলিল, সীতা সাবিত্রীর কথা না হয় ছেড়ে দাও, কিন্তু, খনা, লীলাবতী, গাৰ্গী আমাদের দেশেই জন্মেছিলেন। ভাই, স্বরাজ ফরাজ ঘাইই বল, কিছুতেই হবেন মেয়েদের যত দিন। না। আবার তেমুনি তৈরী করতে পারবাে। আমার ত মনে হয় শীঘ্রই পাবনায় একটা আদর্শ-নারী-শিক্ষা-সমিতি গড়ে তোলা প্রয়োজন । এবং যে আদর্শ মহিলা তার পার্মানেণ্ট প্রেসিডেণ্ট হবেন তঁর নাম ত আমরা সবাই জানি । বৃদ্ধ তারিণী চাটুধ্যে বলিলেন, সেই সঙ্গে একটা পাণ-প্ৰথা নিবারণী সমিতিও হওয়া আবশ্যক। দেশটা ছারখার হয়ে গেল । ব্ৰজেন্দ্ৰ কহিলেন হরিশ, তোমার ত ছেলেবেলায় খাশয় লেখার হাত ছিল, তোমার উচিত তোমার এই রিকভারি সম্বন্ধে একটা আটকেল লিখে আনন্দ বাজার পত্রিকায় ছাপিয়ে দেওয়া । হরিশ কোন কথারই জবাব দিতে পারিল না। কৃতজ্ঞতায় তাহার দুই চক্ষু ছল ছল করিতে লাগিল । br>