প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/১১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ন্যাসালেণ্ড 2 ܘ 慈 লোক মনে করে রাতে ঘুমাতে হয় "আর দিনে কাজ করতে হয়। এখনও পুরাতনযুগের নিয়ম ভেংগে কেউ কাজ করতে আঁসে না । জাহাজ কোম্পানীও স্থানীয় লোকের পুরাতন নিয়মকানুন নষ্ট করতে একেবারেই নারাজ। এই নিয়মই বজায় রাখতে গিয়ে জাহাজ কোম্পানী স্থানীয় লোককে কোনরূপ শিক্ষায়ই ব্ৰতী করতে চায় না। এটাই হলো গোপনীয় কথা, কিন্তু এরূপ করে অশিক্ষিতদের ঘুমিয়ে রাখা সভ্য সমাজের লোকের পক্ষে নিন্দার কথা । সাম্রাজ্যবাদ নিন্দাকে ভয় করে না এবং কখন ৬য় করেওনি। অতএব এবিষয়ে আয় বেশী কথা বলে লোভ নাই। সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে দেখি কতকগুলি মজুয়া জাহাজে এসে নীয়বে শুয়ে আছে। এতগুলি লোক কখন জাহাজে উঠল এবং একটুও শব্দ না করে শুয়ে পড়ল তা বড়ই বিস্ময়েন্ত্র বিষয় । আমাদের দেশে দশজন লোক একত্রিত হলেই হট্টগোলের সৃষ্টি হয় । সংবাদ নিয়ে অবগত হলাম স্থানীয় মিশনারীরা ওদের শিখিয়েছে কি করে লাইন হয়ে দাঁড়াতে হয় তারপর কি করে অন্য কারো অনিষ্ট না করে জাহাজে গিয়ে বসতে হয়। মানুষের স্বাস্থ্য ঘুমেই ফিরিয়ে আনে। নিজের অসাবধানত বশত অন্যের ঘুম ভাংগা ভয়ানক অন্যায় কাজ। মিশনারীরা নিগ্রোদের উন্নত ধৱণের কৃষ্টিগত শিক্ষার দিক দিয়ে সাহায্য করছেনদেখে তাদের কাছে নিগ্রোর যেমন কৃতজ্ঞ আমিও তেমনি কৃতজ্ঞ { আমি চাই মানব জাতের উন্নতি । ভারতবাসীরা অহংকার করে বলে আৰু আধ্যাত্মিক তত্ত্বে বলীয়ান, কিন্তু খৃষ্টান মিশনারীদের সংশিক্ষার সামান্য কিছু হিন্দুসমাজ পেলেও অনেক আগিয়ে যেতে পারত। নিগ্রেী রমণীরা স্বাধীন। তারা এখনও পুরুষের প্রাধান্য স্বীকার কমে না । •যে যে স্থানে আৱব সভ্যতার প্রবেশ লাভ করেছে।