প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/১২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Səbr" , অন্ধকারের আফ্রিকা সক্ষম হননি। ন্যাসাল্যণ্ড দখল করতে ভারতীয় সেপাইদের সাহায্য নিতে হয়েছিল। বর্তমানে ন্যাসাল্যাণ্ড একটি রক্ষিত দেশ। বৃটিশই এখানে সর্বময় কর্তা। প্রকৃতপক্ষে দেশটি শাসিত হয় একজন রেসিডেন্ট দ্বারা । এখানে নিগ্রোদের প্রতি অনর্থক অত্যাচার করা হয় না। নিগ্রেীরা এখানে রাত্রে ডিজ বাতি জ্বালিয়ে পথ চলে বটে। তবে শহরেও থাকতে পাৱে । ইউরোপীয়ানদের ধাড়ীতে প্ৰকাশ্যেই নিগ্রো বয় এবং কুক রাত্রিবাস করতে পারে। এতগুলি সংবাদ আমাকে এক জন ভারতীয় দিয়েই বললেন, ইউরোপীয়ানদের চরিত্র দোষ থাকার জন্যই এরূপভাবে নিগ্রোদের রাত্রে শহরে থাকতে দেওয়া হয়। বক্তার ইংগিত হল, নিগ্রোদের শহরে বাস করতে না দেওয়াই উচিত। যারা গোলাম হয়ে জন্ম গ্ৰহণ করে তাদের গোলামীভাব স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত কোন মতেই যেতে পারে না । যার বাড়ীতে রাত কাটাবার জন্য আসলাম তার ; আিম পূর্বেই বলেছি । ইনি ধমে সুন্নি, এবং অন্যান্য ইণ্ডিয়ান যাঙ্গ এখানে বাস করে তারা সকলেই হল সিয়া । সিয়াগণ নিগ্রোরমণীর পানিগ্ৰহণ কোন মতেই করে না এবং যে সকল ভারতীয় নিগ্রোরমণীর পানিগ্ৰহণ করে তাদের সমাজ হতে তাড়িয়ে দেয়। সমাজ হতে বিতাড়িত হওয়া কত কষ্টের তা সকলে অনুভব করতে পারে না, যারা তাড়িত হয় তারাই সে কষ্ট বোঝে"। ন্যাস-লেকের জুহাজে অন্য আর এক জন লোকের আতিথ্য আমি গ্ৰহণ করেছিলাম। তিনিও ভারতীয় মুসলমান, তিনি জাহাজ হতে উঠেই নিজের ঘরে গিয়ে স্নানাহার করে বিশ্রাম করার পরই লছমনের বাড়িতে এসেছিলেন। তঁর মুখের হাবভাব দেখে বুঝতে পেরেছিলাম, তিনি তার কোনও নিকটস্থ আত্মীয়ের বাড়িতে