প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/১৪০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সালেণ্ড ● >ー? পথ ধরলেন তখন বুঝতে পারলাম, তিনি গ্রামেই বাস কয়েন। ধান ক্ষেতের আইল ধরে ছোট ছোট পথ চলেছে। 'আমরাও সেই আইল ধরেই চললাম । মাঝে মাঝে কাঁদাও পেতে লাগলাম। সাইকেলের সাহায্যে আমি ওকাদা পেরিয়ে যাচ্ছিলাম আয় মান্দ্ৰাজী ভদ্রলোক ঘুরে এসে আমার সংগে মিলছিলেন । আধা ঘণ্টা চলার পর আমরা একটি গ্রামে আসলাম । গ্রাম সমুদ্র হতে যদিও চার মাইলের কম দূরে অবস্থিত ছিল না, কিন্তু যখনই জোয়ার আসত। তখনই জুল গ্রামের কাছে এসে যেত । গ্রামে পৌছে ভদ্রলোকের বাড়িতে এসে উঠলাম । ভদ্রলোকের নাম ছিল লসমনম। তিনি একজন অৰ্দ্ধ নিগ্রো স্ত্রীলোকের পাণিগ্রহণ করেছিলেন। আমাকে যে স্থানে নিয়ে গিয়েছিলেন সেটা হল তার বি লাসভবন । বিলাসভবনে তখন লোক ছিল না, তিনিও থাকবেন। না বলেই বললেন । আমার জন্য খাবার এবং গরম জলের ব্যবস্থা তার বাড়ি হতে হবে বললেন। এবং সারাটা ঘর আমার কাছে ছেড়ে দিয়ে তৎক্ষণাৎ তিনি বিদায় নিলেন। ঘরে প্রবেশ করে দেখলাম উত্তম শয্যা পাতা রয়েছে। ঘরের ভেতর আসবাবের অভাব মোটেই ছিল না। ঘরখানা দেখা হয়ে গেলে পাশের কুয়া হতে জল উঠিয়ে ঠাণ্ডা জলেই স্নান করলাম এবং ঘরে এসে বসামাত্র কে আমার জন্য খাবার এনে রেখে চলে গিয়েছে। আমিও রী না করে খেয়ে নিয়ে একটু বিশ্রাম করার পর পাশের ঘরে উপবিষ্ট একুজন ইউরোপীয়ানের সংগে দেখা করলাম। ইউরোপীয়ানটি আমাকে সাদরে” বসতে দিল এবং নানাদেশের গল্প বলে আমাকে আপ্যুয়িত্ম করতে লাগল। কিন্তু লক্ষ্য করলাম, প্রায়ই আমাকে “স্তার” বলছিল । আমাকে কেন এত সম্মান দেখাচ্ছে তার কোন কারণই খুঁজে