প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বার-এ-সেলাম 8) টাংগানিয়াকার ভারতবাসী রক্ষণশীল। তারা ভাবে বৃটিশের দালালী করেই চিরদিন সুখে থাকবে। বৃটিশের দালালী সকল দেশে সকল সময় চলে না-একথাটা ধনী ভারতবাসীরা অনেক ঠেলা-ধাক্কা খাবার পরও বুঝতে সক্ষম হয় না। দক্ষিণ আফ্রিকাতে এখন বুঝতে সক্ষম হয়েছে, কিন্তু সময়ে বুঝতে সক্ষম হয় নি। ভারতবাসী যে কোন ধমেরই হোক না। কোন বর্জননীতি ভয়ানক্ল রুক্ষভাবে তার কাজকমে ফুটে ওঠে বিশুদ্ধ ভারতবাসী সংঘ বলে যে একটি প্রতিষ্ঠান করা হয়েছে তাতে ফল এমনি দাড়াবে যে নিগ্রো রমণীর দিকে জাত ভারতবাসীর ছেলেরা ভারতবাসীর মাথা কাটতে বড়ই আনন্দ অনুভব করবে। কারণ সেখানে ধমের BBD gDgO sgBD DBBD DDDDD DS gBB SDBB BuDB DBBuBDDDg ভাল করে জাগে নি । আমার স্মরণ আছে, একটি দশ বৎসরের নিগ্ৰেী রমণীর ছেলে আমার কাছে এসে বলেছিল “তার বাবা একজন ভারতীয় মুসলমান, মা তার নিগ্ৰো, কিন্তু ভারতীয় বিদ্যালয়ে তার প্রবেশ নিষেধ, এ কাজটা কি ভারতবাসীর পক্ষে যুক্তিযুক্ত হয়েছে ? আমি তাকে বলেছিলাম “এটা ভয়ানক অন্যায় কাজ হয়েছে।” সে আমার হাতে ধরে বলেছিল “আমাদের সংখ্যা বাড়ছে, যেদিন আমাদের সংখ্যা দুই শত হবে সেদিন খাট ভারতবাসী বুঝবে আমরা কি পদার্থ।” আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম “তোমরা কি করবে ?” উত্তরে বলেছিল “যেমন করেই হউক ভারতবাসীদের আমরা এদেশ হতে তাড়াব, , এটাই আমাদের জীবনের একমাত্ৰ লক্ষ্য থাকবে।” কথা শুনে আমি বড়ই দুঃখিত হয়েছিলাম। কিন্তু যেরূপ ভাবে সংবাদ পাচ্ছিলাম তাতে মনে হয়। এই শ্রেণীর লোকই ভারতের শক্ৰতা করছে সকল রকমে । এরূপ শত্ৰুতা করবেই না কেন? ইউরোপীয়ানরা তাদের ছেলেমেয়েকে অন্তত একটা স্কুল-কল্পে দিয়েছে, ভবিষ্যতে যাতে কিছু করে খেতে পারে, কিন্তু ভারত