প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বার-এ-সেলাম 8ፃ এর পরে রাত কাটাতে হয়েছিল। ঘরে এসে বসেই বাকি রাতটুকু কাটিয়ে সুন্দর সুপ্ৰভাতে ডুডুমা শহরে গিয়ে উপস্থিত হলাম। ডুডুমা সমতল ভূমিতে অবস্থিত। উত্তর দিক হতে প্ৰকাণ্ড একটি মোটা পথ শহরে প্রবেশ করে একে-বেঁকে ফের দক্ষিণ দিকে চলে গেছে। এই পথটার নাম হল কেপ কাইরো রোড। পূর্ব হতে আর একটা বড় পথ এসে শহরে প্রবেশ করে ফের পশ্চিম দিকে চলে গিয়েছে। এই পথটাও কম নয়, ভারত মহাসাগর হতে শুরু হয়ে অতলান্তিক মহাসাগরে গিয়ে শেষ হয়েছে । এতে শহরের গুরুত্ব বেড়ে উঠেছে। ডুডুমা শহর মোটেই বড় নয়। লোকসংখ্যা হাজার পাচেকের বেশি হবে বলে মনে হল না । এই শহরের সশ্বচেয়ে যে বড় দোকান তার মালিক হলেন এক জন সিন্ধি। সকালবেল উঠেই তঁর বাড়িতে গিয়েছিলাম। তিনি ছিলেন বেশ অমায়িক লোক, তাই একটু খাবার খেতে দিয়েই স্থানীয় ধরমশালায় আমাকে পাঠিয়ে দেন । হিন্দুসভার সেক্রেটারী ছিলেন সেই গৃহের রক্ষাকর্তা ! স্থানীয় ধরমশালা বেশ সুন্দর স্থান। সুন্দর স্থানে থাকতে পাৱব ভেবে মনটা হঠাৎ খুলে গেল, মনে হল ভবিষ্যৎ পৃথিবীর এক প্ৰসিদ্ধ স্থানে এসেছি। এর চারি দিক ভাল করে দেখতে হবে। এখানকার জল, এখানকার মানুষ, এখানকার মাটি সবই পরীক্ষা করা দরকার। তাই ধরমশালাতে বেশিক্ষণ না বসে, ছোট্ট শহরটির চারিদিকুে ঘুরে বেড়াতে লাগলাম। কয়েকবারই উত্তরের পথটাতে গিয়ে দাড়িয়ে দেখতে লাগিলাম-কাইরো হতে কোনও মোটরকার কেপ টাউনের দিকে যাচ্ছে কিনা । কিন্তু ফুধৈর বিষয় সেরূপ একখানা মোটরের দেখা পেলাম না। প্রত্যেক দিনই অনেকক্ষণ দাড়িয়ে পথটার দিকেই চেয়ে থাকতাম আর কত কিছু ভাবতাম-তত্ত্ব পর ফিরে আসতাম।