প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/৬৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অরণ্যে ছিলাম। দুধ, ঘি এবং কয়েকটি মোরগ আমাদের জন্য কেনা হয়েছিল। ইণ্ডিয়ান গ্ৰাম হতে চাউল কিনিয়ে আনালাম । তার পর পাক আরম্ভ হল। পাক হয়ে গেলে তিনি জুনে একই সংগে বসলাম । নিগ্রোর আমার চেয়ে বুেশ শ্বেতে পারল না । খাদ্যের সদ্ব্যবহার আমিই বেশি করলাম । খাবার শেষ হয়ে গেলে আৱাম করে। শুয়ে পড়লাম। পরদিন সকালেও স্থান ত্যাগ করা হল না। বিশ্রাম করাই ভাল মনে করলাম । নিগ্রোদের শরীরে লোম খুব কমই হয় । কিলিম তিন্দি গ্রামে কয়েকজন লোক দেখলাম, তাদের শরীরে অনেক লোম ছিল । এমন কি অস্বাভাবিক বললেও দোষ হয় না । সার্থীদের- এ সম্বন্ধে একটু গবেষণা করতে বললাম। তারা শুধু জানিয়ে দিল বাঁদরসংস্পর্শে এলেই এরূপ হয় । সার্থীরা ভদ্র এবং পণ্ডিত, সেজন্যই এক কথায় তারা কথাটার জবাব দিয়ে দিল । আমার কিন্তু তাদের এক কথার জবাব মনে উঠল না। অথচ তাদের কাছে বেশি করে এ সম্বন্ধে কোন কথা বলাও চলে না, সেজন্য সারাটা দিন গ্ৰামৰ্টই ঘুরে বেড়ালাম কিন্তু একটা বঁােদরও দেখতে পেলাম না । রাত্রে সার্থীদের জিজ্ঞাসা কয়লাম “বান্দর সংস্পর্শে আসা” মানে কিছুই বুঝতে পারলাম না । দয়া করে এ সম্বন্ধে আমাকে কিছু বলতেই হবে। আমার কথা শুনে উভয় নিগ্রোসাখীর চােখ কপালের দিকে উঠল। তাদের চিন্তাকুল অবস্থা দেখে আমিও কতক চিন্তিত হলাম এবং বললাম। যদি ইচ্ছা না হয় তবে এ সম্বন্ধে কিছু না বললেও চলবে। বন্ধুগণ। তবে এটা জেনে রেখো আমি এ সম্বন্ধে একটা কিছু কুল-কিনারা করবই। টাবোরা আমাদের পথে আসছে, সেখাদ্য অনেক ইণ্ডিয়ানও আছে, তারা আমাকে এ সম্বন্ধে সকল কথাই