প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অন্ধকারের আফ্রিকা.djvu/৮২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ਰ:੧ ዓዓ দুদিন পর ইরিংগার ইণ্ডিয়ানরা আমার অভিজ্ঞতা ਕੀ ਬਜ਼ একত্রিত হয়। আমার ভ্রমণের অভিজ্ঞতা বলায় পূর্বে সভাতে যারা বসেছিল তাদের জিজ্ঞাসা করলাম, "আপনারা ইউরোপীয়ানদের এত ভয় করেম কেন ?” সে কথার জবাব কেউ দিতে সক্ষম হন। নি। কেন আমরা ইউরোপীয়গণের ভয় করি সে কথার উত্তরে অনেক কথাই বলেছিলাম । আমার কথা শুনে অনেকেই সুখী হয়েছিলেন । সভাতে যার উপস্থিত হয়েছিলেন তারা সকলেই প্ৰতিজ্ঞ করলেন, কোন জাতের মানুষকেই "তারা ভয় করে। চলবেন না । লেকচার দিবার কয়েক দিন পরই ইরিংগা হতে মোটর যোগে রওনা হবার বন্দোবস্ত করি। ইরিংগা হঁতে মবিয়া নামক স্থান ২৮৩ মাইল । এই পথটুকু আমাদেয় দুদিনে ভ্ৰমণ করতে হয়েছিল, কারণ এদিকের মোটর রোড় একেবারে বাজে। পথে কয়েকখানা গ্ৰামও এসেছিল, কিন্তু কোথাও মোটর গাড়ী থামল না। পথে আমার মাতা নানা নামক স্থানে রাত কাটিযেছিলাম । এখানে নিগ্রেী এবং ইউরোপীয় উভয় রকমের হোটেল ছিল । নিগ্ৰো হোটেল অবিকলে আমাদের দেশের মতই সজ্জিত । খাবার এবং থাকবার স্থান পাওয়া যায়। সর্বপ্রথম আমরা নিগ্রো হোটেলেই নেমেছিলাম। নিগ্ৰো হোটেলে খেয়ে সেখানে না থেকে ইউরোপীয় হোটেলে চলে এলামু। নিগ্ৰে হোটেলে মাটিতে বিছানা করে শুইতে হ’ত । ইউরোপীয় হোটেলে লোহার প্ৰিংওয়ালা খাটে -গদির উপর সুন্দর বিছানা সজ্জিত ছিল। ' বিছানার লোভেই আমাদের ইউরোপীয় হােটেলে আসতে হয়েছিল। এ দিকেও ডুডুর ভয় খাকায় মাটিতে শোওয়া পছন্দ করি নি। ইউরোপীয় হােটেলের মালিক তখন ঘরে ছিলেন না, তারা স্ত্রী আমাদের থাকার ঘর