পাতা:অন্ধকূপ-হত্যা-রহস্য - মুজিবর রহমান.pdf/২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


।।।। । . t , “অন্ধকূপ-হত্যা”-রহস্য করার জন্য তাহাদের প্রতিহিংসা বশতঃই হইয়াছিল। কারণ এই যুদ্ধে তাহাদের সহকর্মিগণ অনেক নিহত হইয়াছিল•••••••• প্রহরী বেষ্টিত হইয়া তাহাদের অবস্থার বিবরণ) মুসলমানগণ দুর্গাভ্যন্তরে প্রবেশ করিলে ‘লিচ’ (Leech) নামক একব্যক্তি দুর্গ হইতে পলায়ন করিয়াছিলেন এবং ঠিক সন্ধ্যার প্রাক্কালে আমার পলায়নের জন্য তিনি একখানি নৌকা সংগ্রহ করিয়া আমার নিকট হাজির হইলেন এবং পলাইবার জন্য আমাকে অনুরোধ জানালেন। ইহাও অবাধে সুসম্পন্ন হইত•••••••••••••••আমার সাধ্যমত তাহাকে আমি বেশ ধন্যবাদ দিলাম এবং এমনও বলিয়া দিলাম যে, আমার সঙ্গিগণের যে দশা, আমারও সে দশা হইবে; এবং পলায়ন করিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করিয়া তাহাকে নিরাপদ হইতে অনুবােধ জানাই•••••••••যাহারা প্রথমে অন্ধকূপে প্রবেশ করিয়াছিল তাহাদের মধ্যে বেলি, জেঙ্ক, কুক ও কোলস্ এবং আমিও সঙ্গে ছিলাম। পূৰ্বের উল্লিখিত ব্যক্তিগণ আমার পার্শ্বেই ছিল। তখন রাত্রি প্রায় ৮টা বাজে••••••••• আচ্ছা বন্ধু, আপনি মনে করিয়া দেখুন ত, বাংলা দেশের এই তীব্ৰ গ্ৰীষ্মরাত্রে চারিদিকে কঠিন দেওয়াল বেষ্টিত, উত্তরদিকে মাত্র ১টী দরজা এবং পশ্চিমদিকে লৌহশলাকাযুক্ত ২টা জানালা, যাহার মধ্যে শীতল হাওয়া খুব কমই পৌহুছিতে পারে, এমন একটা ১৮ বর্গ ফুট বিশিষ্ট ক্ষুদ্র কক্ষে ১৪৬ জন হতভাগ্য কিরূপভাবে অবরুদ্ধ হইতে পারে ? ঘরের মধ্যে দৃষ্টি নিক্ষেপ করিয়া ইহার আকার ও আয়তন পৰ্যবেক্ষণপূৰ্ব্বক, পরিণামে যে কি হইতে পারে আমার মনে তাহার একটা জীবন্ত এবং ভয়াবহ ছবি উদিত হইল। দুয়ারটা ভাঙ্গিবার অনেক চেষ্টাই করা গেল, কিন্তু উহা ভিতরমুখী ছিল এবং (বাহির হইতে) বন্ধ থাকায় আমাদের সকল চেষ্টাই বিফল হইল। ইত্যবসরে বন্দিগণের প্রায় সকলেই উত্তেজিত হইয়া উঠিল। আমাদের ভাগ্যে ITHA । * - - - । ১৮