পাতা:অন্ধকূপ-হত্যা-রহস্য - মুজিবর রহমান.pdf/৩১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় পরিচ্ছেদ ৮। মিঃ সাই-এর পত্র : কাসিমবাজার হইতে লিখিত | ৮ই জুলাই, ১৭৫৬। ••••••“অদ্য প্রভাতে ‘হলওয়েল’ ‘কোর্ট, ওয়ালকট’, ও বারডেট (ifurdett) লৌহ-শৃঙ্খলবিদ্ধ হইয়া বন্দী অবস্থায় মুর্শিদাবাদ অভিমুখে গেলেন। হলওয়েল কিছু রুটি ও মাখনের জন্য ‘মসিয়ে-ল্য’কে একখানি পত্র লিখিয়াছেন। তিনি আমাদিগকে যে পত্র পাঠাইয়াছেন নিম্নে তাহারও মৰ্ম্ম দেওয়া গেল।

  • ১৮ই তারিখে ম্যানিংহাম ও ফ্রাঙ্কল্যাণ্ড দুর্গ পরিত্যাগ করেন। পরদিন প্রভাতে প্রেসিডেন্ট ড্রেক সাহেবও নৌকাযােগে পলায়ন করেন । এবং দুর্গের অবশিষ্ট লোকের জন্য একখানিও নৌকা রাখেন নাই.••••••• অবশেষে যুদ্ধ বিরতির পতাকা উত্তোলন করিয়া সন্ধির কথাবার্তা হইতেছে, এমন সময় গুপ্ত দরজাটি বিশ্বাসঘাতকতাপূর্বক বিপক্ষ পক্ষকে সমর্পণ করা হইল•••••••••নবাব দুর্গাভ্যন্তরে প্রবেশ করিয়া তিনি তথায় সৈন্য, কর্মচারী প্রভৃতি মোট ১৬০ জনকে ‘অন্ধকূপে অবরুদ্ধ করেন•••••••• এবং পরদিন প্রভাতে দেখা গেল উহাদের মধ্যে ১১০ জন বায় অভাবে প্রাণত্যাগ করিয়াছে। সমস্ত রাত্রি নবাবের সৈন্যগণ দরজা দিয়া আমাদের প্রতি গুলি চালাইয়াছিল, “ইহা হলওয়েল এর পত্রের মর্ম” :•••••1* (১৩)

এই পত্র হইতে প্রমাণ হইতেছে যে, ইহা হলওয়েল এর পত্রের অনুরূপ, ইহা সাই’ এর বর্ণনা নহে। এই পত্রে হলওয়েল বলিতেছেন, নবাবের সৈন্যগণ সমস্ত রাত্রি দুয়ার দিয়া তাহাদের প্রতি গুলি চালাইয়াছিল । কিন্তু তিনি তাহার ৪র্থ পত্রে কলিতেছেন—“( অন্ধকূপের) দুয়ারটা খুলিবার জন্য অনেক চেষ্টা করা হইল কিন্তু সফলকাম হইতে পারি নাই কারণ দুয়ারটি রিমুখী ছিল। ইহা হইতে প্রমাণ হয়, দুয়ারটা বন্ধ ছিল এবং (১৩) Hill: Bengal in 1756-57 vol. I, pp 61-62 ২৩ ।।।। । ।। + + L