পাতা:অন্ধকূপ-হত্যা-রহস্য - মুজিবর রহমান.pdf/৫৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


. . . . . . . চতুর্থ পরিচ্ছে চিঠি পত্রাদিতে সে সম্বন্ধে সবকিছুই দেখিতে পাইবেন ( জানিতে পারিবেন)। “সে সব কাগজপত্রে লেখা হইয়াছে যে, ড্রেকএর সহিত কোন একটা বন্দোবস্ত করিয়া লইতেই নবাব তাহাকে (শান্তির চিহ্নস্বরূপ ) পানপত্র { betel leaf ) ও একখানি পত্র প্রেরণ করেন। তিনি তাহার দূতকে অতি জঘন্যভাবেই গ্রহণ করিয়া তাহার চিঠি ও পানপত্রগুলি পদদলিত পূর্বক দূতকে বলিয়াছিলেন যে, সে যেন তাহার প্রভুকে বলে••••••• তিনি (ড্রেক) স্বয়ং তাহার নিকট যাইয়া একটুকরা শূকরের মাংস তাহার দাড়িতে ঘষিয়া দিবেন। এইরূপ উক্তি অত্যন্ত অপমানজনক ও বিরক্তিকর (offensive); ইহাতে যে একজন আত্মাভিমানী নবীন রাজা এমন সুন্দর ও দীপ্তিমান উপনিবেশটী ধ্বংস করিবার জন্য শপথ গ্রহণ করেন, তাহাতে আপনার আশ্চৰ্য্য বােধ করিবার কিছু নাই।••••• বড় বড় বণিক ও সাধারণ ব্যক্তিগণ যে ৩ কোটী টাকা••••••••নিরাপদ। ভাবিয়া কুঠীতে তাহার জিম্মায় রাখিয়াছিলেন, তাহা তিনি জাহাজে তুলিয়া ৮০ জন লােকসহ নবাবের দুর্গ অধিকারের দুইদিন পূর্বে তথা হইতে পলায়ন করিয়াছিলেন। ২০শে জুন তারিখে নবাব ( সহরে ) প্রবেশ করিলে•••••তাহার সৈন্যগণ দুইজন কাউন্সিলারসহ অনেক ইংরাজকে বন্দী করে। তাহারা ১২০ জন নরনারীকে একটা কারাগারে আবদ্ধ রাখিয়া ৭ দিন পর্যন্ত ভুলিয়া যায়। শেষ দিবস দুয়ার খুলিয়া দেখা গেল, তাহাদের মধ্যে ১৪ জন জীবিত ও অবশিষ্ট লােক প্রাণত্যাগ করিয়াছে আমাদের চন্দননগরের ভদ্রলােকগণ নবাবের আদেশে অনেকগুলি ইংরেজ ভদ্রলােক ও মহিলাকে আশ্রয় দান করিয়াছিলেন। (৪৫) (৪৫) Hill: Vol. I, p. 229-29 ৪৭