প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অপরাজিত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*RB অপরাজিত বলিল-এ বাজারে চাকরিটুকু গেলে মশাই দাঁড়াবার যো নেই একেবারে-বোনের বিয়েতে টাকা ধার, সদে-আসলে অনেক দাঁড়িয়েছে, সব্দটা দিয়ে থামিয়ে রাখার উপায় যদি না থাকে। মহাজন বাড়ি ক্ৰোক দেবে মশাই, কি যে করি ! ইতিমধ্যে সে একদিন লীলাদের বাড়ি গেল। যাওয়া সেখানে ঘটে নাই প্রায় বছর দই, হঠাৎ অপ্রত্যাশিতভাবে তাহাকে দেখিয়া লীলা আনন্দ ও বিস্ময়ের সরে বলিয়া উঠিল-এ কি আপনি ! আজি নিতান্তই পথ ভুলে বঝি এদিকে এসে পড়লেন ? অপ, যে শািন্ধ অপ্রতিভ হইল তােহা নয়, কোথায় যেন সে নিজেকে অপরাধী বিবেচনা করিল। একটুখানি আনাড়ীর মত হাসি ছাড়া লীলার কথার কোন উত্তর দিতে পারিল না । লীলা বলিলএবার না হয় আপনার পরীক্ষার বছর, তার আগে তো অনায়াসেই আসতে পারতেন ? অপ, মদ হাসিয়া বলিল-কিসের পরীক্ষা ? সে সব তো আজ বছর দই ছেড়ে দিয়েছি । এখন খবরের কাগজের অফিস চাকরি করি । লীলা প্রথমটা অবাক হইয়া তাহার মাখের দিকে চাহিয়া রহিল, কথাটা যেন বিশ্ববাস করিল না, পরে দঃখিতভাবে বলিল,-"কেন, কি জন্য ছাড়লেন পড়া, *.न ? अा-21-न् °gा ८छgफु0छन् ! লীলার চোখের এই দন্টিটা অপাের প্রাণে কেমন একটা বেদনার সষ্টি করিল, অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ আত্মীয়তার দলিট, তবও সে হাসিমখে কৌতুকের সরে বলিলএমনি দিলাম ছেড়ে, ভাল লাগে না। আর, কি হবে পড়ে ? তাহার এই হালকা কৌতকের সরে লীলা মনে আঘাত পাইল, অপবর্ণ কি ঠিক সেই পরানো দিনের অপর্বেই আছে ? না যেন ? অপ বলিল-তুমি তো পড়ছি, না ? লীলা নিজের সম্পবন্ধে কোন কথা হঠাৎ বলিতে চায় না, অপাের প্রশ্নের উত্তরে সহজভাবে বলিল-এবার আই-এ পাশ করেছি, থান্ড ইয়ারে পড়ছি । আপনি আজকাল পরোনো বাসায় থাকেন, না, আর কোথাও উঠে ८ि५ ? লীলার মা ও মােসীমা আসিলেন । লীলা নিজের অাঁকা ছবি দেখাইল । বলিল-এবার আপনার মাখে ‘স্বৰ্গ হইতে বিদায়’টা শািনব, মা আর মােসীমা সেই জন্য এসেছেন । আরও খানিক পরে অপ, বিদায় লইয়া বাহিরে আসিল, লীলা বৈঠকখানার দোর পর্যন্ত সঙ্গে আসিল, অপ, হাসিয়া বলিল,-লীলা, আচ্ছা ছেলেবেলায় তোমাদের বাড়িতে কোন বিয়েতে তুমি একটা হাসির কবিতা বলেছিলে মনে আছে ? মনে আছে সে কাধি৩াটা ? m --উঃ ! সে আপনি মনে করে রেখেছেন এতদিন ! সে সব কি আজকের কথা ? অ - অনেকটা আপন-মনেই অন্যমনসকভাবে বলিল-আর একবার তুমি তোমার জন্যে আনা দধে অধোকটা খাওয়ালে আমায় জোর করে, শািনলে না।