প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অপরাজিত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৮৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अनाछिऊ e এক সপ্তাহ খাটিয়া প্রবন্ধ লিখিয়া ফেলিল। নাম-"নাতনের আহবান ; সকল বিষয়ে পরাতনকে ছটিয়া একেবারে বাদ । কি আচার-ব্যবহার, কি সাহিত্য, কি দেখিবার ভঙ্গি-সব বিষয়েই নাতনকে বরণ করিয়া লইতে হইরে। অপর মনে মনে অনভব করে, তাহার মধ্যে এমন একটা কিছ আছে যাহা খাব বড়, খাব সন্দির। তাহার উনিশ বৎসরের জীবনের প্রতিদিনের সখদঃখ, পথের যে-ছেলেটি অসহায় ভাবে কািদয়া উঠিয়াছে, কবে এক অপরাহের ফলান আলোয় যে পাখিটা তাহদের দেশের বনের ধারে বসিয়া দোল খাইত, দিদির চোখের মমতা-ভরা দলিট, লীলার বন্ধত্ব, রাণাদি, নিমালা, দেবব্রত, রৌদ্রদীপ্ত নীলাকাশ, জ্যোৎসনা রাত্রি-নানা কল্পনার টুকরা, কত কি আশা-নিরাশার লকোচুরি - সকসক্ষধ লইয়া এই যে উনিশটি বৎসর-ইহা তাহার ব্যথা যায় নাই।-কোটি কোটি যোজন দরে শান্যপার হইতে সায্যের আলো যেমন নিঃশব্দ জ্যোতির অবদানে শীণ শিশ-চার্যকে পত্রপশুপফলে সমন্ধ করিয়া তোলে, এই উনিশ বৎসরের জীবনের মধ্য দিয়ে শাশবত অনন্ত তেমনি ওর প্রবর্ধমান তরুণ প্ৰাণে তাহার বাণী পৌছাইয়া দিয়াছো-ছায়ান্ধকাের তণভমির গন্ধে, ডালে ডালে সোনার সিদর-মাখানো অপরােপ সন্ধ্যায় ; উদার কলপনায় ভরপর নিঃশব্দ জীবনমায়ায় -সে একটা অপর্বে শক্তি অন্যভব রাখার নয়। কোথায় থাকিবে প্রণব আর মন্মথ ?- সবাই মামলি কথা বলে । সকল বিষয়ে এই মামলি ধরণ যেন তাহদের দেশের একচেটে হইয়া উঠিতেছেযেমন গরড়ের মত ডিম ফুটিয়া বাহির হইয়া সারা পথিবীটার রস-ভান্ডার গ্রাস করিতে ছটিতেছে, সে তীব্র আগ্রহ-ভরা পিপাসাত নবীন মনের সকল কল্পনা তাহাত ভােগ তা হয় না । ইহারই বিরুদ্ধে, ইহাদের সকলের বিরদ্ধে দড়িাইতে হইবে, সন্ধা ওলট-পালট করিয়া দিবার নিমিত্ত সংঘবদ্ধ হইতে হইবে তাহাদিগকে এবং সে-ই হইবে তাহার অগ্রণী । SuuD BSBD DBBS DBDY YY DDBBB BB DBBYBBDBBBBE BOBBDB BuS KBBkBE BDBDD BLSS TDB KBEB BDBBDD 0D BBD S BBBBD DBBBB DBBBD কুয়ে নাই, কেহু কখনও শোলে, “iাই ইত্যাদি । লজিকের ছোকরা-প্রোফেসার ইষ্ট্রনি.নের সেক্রেটারী, তিনি জিজ্ঞাসা করলেন,-কি ব’লে নোটিশ দেবো তোমান্ন প্রবন্ধের হে, বিষয়টা কি ? DDB uBS BBBD DBBBB BBDDSJJEES EDE S DDDB BDD DBDYYSSHHHHL why not-পরিতলের বাণী ? আপ হাসিমখে চুপ করিয়া রহিল। নিদির্ঘািট “দনে যদিও ভাইস-প্রিন্সিপ্যালের সভাপতি হইবার কথা নোটিশে ছিল, তিনি কাষ'- ংশতঃ হ্যাসিতে পারিলেন না । ইতিহাসের অধ্যাপক মিঃ বসাকে সভাপতির আসনে বসিতে সকলে আনরোধ করিল। ভিড় খাব হুইয়াছে, প্রকাশ্য সভায় অনেক লোকের সম্মখে দাঁড়াইয়া কিছু করা অপায় এই প্রথম । প্রথমটা তাহার পা কপিল, গলাও খািব কপিল, কিন্তু ক্লামে বেশ সহজ হইয়া আসিল । প্রবন্ধ খাব সত্তেজ-এ। বয়সে যাহা কিছু দোষ থাকে-উচ্ছবাস, অনভিজ্ঞ আইডিয়ালিজম ভাল মন্দ নিবিশেষে পরোক্তনকে ছটিয়া ফেলিবার দক্ষভ-বেপরোয়া সমালোচনা,