পাতা:অমরনাথ (কৃষ্ণচন্দ্র রায় চৌধুরী).pdf/১৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অমরনাথ । >も* অমর। বিষয়টা দুটি স্ত্রীলোক এই অগ্ৰদানী পল্লীতে থাকে। তাদের মধ্যে যে যুবতী, তার একটি পুত্র সস্তান হয়েছে । সেই অপবাদ আমার নামে দিয়ে দারগার কাছে এজহার দিয়েছে। আর কি চাই বল । মতি । তুমি থাক ! তোমার যাওয়া হবে না । আমি কোন মতে তোমাকে যেতে দিতে পারিনে । এতে যা হয় তার উত্তর দায়ক আমি । ( উষ্ণতার সহিত ) এ সব এই জমিদারের নারকী চক্র ! তোমার দাদারও ষে এতে কিছু অংশ নেই এ কথা আমি নিশ্চয় বোলুতে পারিনে। এতদ ভিন্ন তোমার উপর ষে এই বিষাক্ত অস্ত্র চালায়, এমন নরাধম এ গ্রামে কি, আমি মুক্তকণ্ঠে বোলতে পারি, এ পৃথিবীতে নাই। অমর । চুপ্‌ চুপ, চুপ অত উষ্ণ হইও না । মতি । না তা উষ্ণ হই অার নাই হই, তোমার যাওযা হবে না । আমি এ বিষষেব ভণর নিলেম । কাল যদি এ সকল জালসাজি না বেরিয়ে পড়ে, তবে তুমি আমার মুখ দর্শন কোর না । অমর। বিলক্ষণ ! থাকবীর প্রলোভটা দেখালে ভাল । তোমার মুখ দর্শন কোরব না। রাগেতে তোমার দৃষ্টি ঘোর হয়েছে, স্থল যে পদার্থ, তাই দেকৃচ; পৰ্ব্বতটি দেখতে পাচ্ছ, কণ্টকগুলি দেখতে পাচ্ছ না। তুমি যা বোলুচ ত হয় না। তুমি মনে কোচ্ছ এই গ্রামে আমাদের বাধ্য সকলেই, আর জমিদারের বাধ্য কেউই না । সেটা ভ্ৰম । স্বার্থের বাধ্য সকলি । স্বার্থ হীন কাৰ্য্যই অপ্রসিদ্ধ ! বুদ্ধি বিশিষ্ট্র জীবের কাৰ্য্যের কারণের নামই স্বার্থ। সাধারণে যেটাকে স্বার্থ রহিত বলে, সেটা সুদ্ধ পরিত্রিকের স্বার্থ মাত্র । বিশেষতঃ উপস্থিত বিষয়ে নকণর পক্ষ প্রমাণ করাই কঠিন । জমিদারই হোক, আর যেই হোক, এ কৰ্ম্ম যে কোচ্ছে, সে ব্যক্তি দুজন লোক দিয়ে বলিয়ে দিলেই হল। কিন্তু এটি স্বে নয়, সে কথা আজকাল দুরে থাক, কস্মিন