পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অশনি-সংকেত একটু পরে চার-পাঁচটি ছোট ছোট ছেলে শ্লেট বই নিয়ে দাঁড়বাঁধা দোয়াত ঝুলিয়ে গঙ্গাচরণের কাছে পড়তে এল । গঙ্গাচরণ বললে, আমি এই খেয়ে উঠলাম, একটু শয়ে নিই--তোরা পরোনো পড়া দ্যাখ ততক্ষণ ; ওরে নস, তোদের বাড়ীতে বেগােন হয়েছে ? একটি ছোট ছেলে বললে-হ্যা গরমশায়গঙ্গাচরণ ধমক দিয়ে বললে—গরমশায় কি রে ? সারা বলবি। শিখিয়ে দিইচিনা ? বল ছেলেটি ভয়ে ভয়ে বললে-হ’্যা সার --যা গিয়ে বসে লিখগে-বেগােন নিয়ে আসবি কাল, বাকলি ? -আনবো সারা । ছেলে ক’টি দাওয়ায় বসে, এমন চীৎকার জড়ে দিলে যে তাদের ত্রি-সীমানায় করে নিদ্রা BD DBBB DDBOBM BBDSDBDBS BDSDDBD DBBBB BBBLSJSiDDDS LLSDB DDBB BD gBBuBB পোকা বের করে দিলে। ওদের একটু থামিয়ে দাও গঙ্গাচরণ হেকৈ বললে-এই ! পড়া থাক এখন, সবাই শর্টকে কড়ংকে লিখে রাখ শেলেটে । আমি ঘামিয়ে উঠে দেখবো। s তারপর স্ত্রীকে খাঁশির সরে বললে-ছটা হয়েচে, আরও সাত-আtটা কাল আসছে পােব পাড়া থেকে । ভীম ঘোষ বলছিল, বাবাঠাকুর, আমাদের পাড়ার সব ছেলে আপনার কাছে পাঠাবো । নেতা। কােপালীর কাছে পড়লে যদি ছেলে মান যে হোেত, তা হোলে আর ভাবনা ছিল না । ব্ৰাহ্মণ হোল সমাজের সব কাজের গরমশায় । কথায় বলে ব্লাহ্মণ পণ্ডিত । গঙ্গাচরণ মন দিয়ে ছেলে পড়ায় বটে । ঘাম থেকে উঠে সে ছেলেদের নিয়ে অনেকক্ষণ ব্যস্ত রইল-কাউকে নামত পড়ায়, কাউকে ইংরেজী ফাস্ট বািক পড়ায়-ফিকিবাজ গরমশায় কেউ তাকে বলতে পারবে না । বেলা বেশ পড়ে গেলে সে ছাত্রদের ছটি দিয়ে লাঠি নিয়ে বাইরে বেরবার উদ্যোগ করতে অনঙ্গ এসে বললে-ওগো, কিছু খেয়ে যাবে না-আজ দাবাড়ী থেকে দধি পাঠিয়ে দিয়েছিল, একটু ক্ষীর করেচি*** বৈকালিক জলযোগ অনেকদিন আদলেট ঘটে নি । নানা অবস্থা বিপন্যায়ের মধ্যে আজ তিনটি বছর কাটচে পাবামী-স্ত্রীর । সতরাং সত্রীর কথা গঙ্গাচরণের কানে একটু নতুন শোনালো । সত্ৰীকে বললে--ছেলেদের দিয়েচ ? -সে ভাবনা তো তোমার করতে হবে না, তুমি খেয়ে নাওখেতে খেতে পরম তৃপ্তির সঙ্গে সে সন্ত্রেীকে বললে-এখানে আছি ভালই, কি বল ? অনঙ্গ-বৌয়ের মখে সমৰ্থনসচক মদ হাসি দেখা দিল, সে কোনো উত্তর করল না। লক্ষীর কৃপা যদি হয়ই, মাখে তা নিয়ে বড়াই করতে নেই। তাতে লক্ষয়ী রাগ করেন । গঙ্গাচরণ খানিকটা ক্ষীরসদ্ধ বাটিটা সন্ত্রীর হাতে দিয়ে বললে--এই নাওSSi D S DDYuB OB DBBDYS SAYYDO DDD DLD B DBYS DDB LLLB BD BB DYS wم --তা হােক । আর খাবো না-এবার বিশ্লেবস মশায়ের বাড়ী যাই । পাকাপাকি করে আসি ।