পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অশনি-সংকেত SS --নিশ্চয়ই । -কিন্তু একটা কথা বাপ • • • --কি ? -এ গাঁ ছেড়ে অন্য কোথাও আর যেও না । --যান্দিন চলা-চলতির সবিধে থাকে, থাকবো বৈকি। এখন তো বেশই হচ্ছে-বিশ্ববাস মশায় এ গাঁয়ের মোড়ল । সে যখন ভরসা দিয়েচে, তখন আর ভয় করি নৌ --তা তো বঝলাম, কিন্তু তোমার যে মন টেকে না কোথাও বেশিদিন । -হাতে পয়সা এলেই মন টিকবে। তা ছাড়া দিব্যি নদী--- -আমার কিন্তু ইচ্ছে করে একবার ভাতছালা দেখতে । --তা একবার গেলেই হয়। গরর গাড়ীতে একদিনের রাস্তা। বিশ্বেবাস মশায়ের কাছে বললেই গরর গাড়ী দিতে পারে। অনঙ্গ আগ্রহের সঙ্গে বললে-হ্যািগা তা বলো না । বলবে একবার বিশ্লেবস মশায়কে ? গঙ্গাচরণ হেসে বললে-কেন ? ভাতছালা যাবার খািব ইচ্ছে ? -थ-छे-द। --তুমি তাহোলে পটল আর খোকাকে নিয়ে ঘরে এসো একদিন । -:कन ड्रंभ ? -আমার পাঠশালার ছটি কই ? আচ্ছা দেখি চেণ্টা করে । -কতকাল যাই নি ভাতছালা। চার বছর কি পাঁচ বছর। ভাতছালার বিনি নাপতিনীকে মনে আছে ? আহা, কি ভালই বাসতো। আবার দেখা হোলে সেও কত খশী হয় ! সেই আমবাগানের ধারে আমাদের ঘরখানা।-আচ্ছা কত জায়গায় ঘর বাঁধলে KCF TE ? গল্পগজেবে শীতের বেলা পড়ে এল। গঙ্গাচরণ উঠে বললে-যাই । একবার পাশের গাঁয়ে যাবো। পাঠশালার জন্যে আরও ছাত্র যোগাড় করে আনি। ছাত্র যত বেশি হবে ততই সবিধে । -একটু কিছ জল খেয়ে যাও গঙ্গাচরণ আহসাদে হেসে বললে-অভ্যোস খারাপ করে দিও না বলচি । এ সময় জলখাবার খেয়েছি। কবে ? অনঙ্গ হাসিমখে বললে-মা-লক্ষী যখন জটিয়ে দিয়েচেন, তখন খাও । দাঁড়াও আমি जान একটা পাথরের বাটিতে কয়েক টুকরো পোপে কাটা ও আখের টিকালি এবং অন্য একটা কাসার বাটিতে খানিকটা সর নিয়ে অনঙ্গ-বেী সবামীর সামনে রাখলে । গঙ্গাচরণ খেতে খেতে বললে-আচ্ছা, একটা কাজ করলে হয় না ? --কি ? -আচ্ছা, একটু চায়ের ব্যবস্থা করলে হয় না ? অনঙ্গ ঠোঁট উলেট বললে-ওঃ ! তোমার যদি হোল তো সব চাই । চা ! -कन ? -ওসব বড়মানষে খায় । গরীবের ঘরে কি পোষায় ?