পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অশনি-সংকেত Nők -এখন কি করা যায় তা হোলে ? --সপ্তবস্ত্যয়ন করতে হবে, সামনের আমােবস্যের দিন যোগাড় করতে হবে সব । টাকা পনেরো-কুড়ি খরচ হবে । w বিশ্ববাস মশায় উদ্বিগ্ন সরে বললেন--কি কি লাগবে একটা ফাঁদ করে দিন না ঠাকুর মশাই । গঙ্গাচরণ গম্ভীরভাবে বললে-দেখে শানে ফাদ করতে হবে । একটা গাৱতব ব্যাপার, আপনার নাতির অসংখ সারা না-সারা এর ওপর নিভাির করচে। যা-তা করে দিলেই তো 26व ना ? माँgान (hक, आन5 গঙ্গাচরণ বাড়ীর মধ্যে ঢুকতেই দেখলে অনঙ্গ-বেী দরজার কাছে দাঁড়িয়ে ওদের কথাবাত। সব আড়াল থেকে শীনেচে । স্বামীকে দেখে বললে-ও কে গা ?--কি হয়েছে ? গঙ্গাচরণ স্ত্রীকে হাতছানি দিয়ে ভেতরের উঠোনে ডেকে নিয়ে গিয়ে বলল-বড় খন্দের । উনি হােলেন বিশ্ববাস মশায় । তোমার কাপড় আছে ক’খানা ? -আমার ? —আঃ, তাড়াতাড়ি বল না ? তোমার না তো কি আমার । -আমার আটপৌরে শাড়ী আছে দ’খানা, আর একখানা, তিনখানা । তেরঙ্গের মধ্যে তালা ভালো শাড়ী আছে দ’খানা । --কি নেবে বলো । ভালো শাড়ী না আটপৌরে ? --ভালো শাড়ী একখানা হোলে বড় ভালো হয়, কস্তাপেড়ে, এই--এই রকম জলচুড়ি দওয়া, বাসদেবপরে চৰ্কত্তি-গিাষীর পরনে দেখে সেই পৰ্যন্ত বািড় মনটার ইচ্ছে-হ্যা গা, কে দবে গা ? -আঃ, একটু আস্তে কথা বলতে পারো না ছাই ? দাঁড়িয়ে রয়েচে বাইরে । আর শানো, গাওয়া ঘি আছে। ঘরে ? অনঙ্গ ঠোঁট উলেট তাচ্ছিল্যের সরে বললে-গাওয়া ঘি ? বলে ভাত পায় না, মড়কি ब्° গঙ্গাচরণ বাইরে এসে বললে-এই যে বিশ্ববাস মশায়, বসিয়ে রাখলাম। কিন্তু এসব কাজ ভবে চিন্তে করে দিতে হয় । শানে নিন-ভালো লালপাড় শাড়ী একখানা, গাওয়া ঘি আধ সর-ওটা-তিন পোয়াই ধরন । “ চিনি পাঁচপোয়া, পাকাকালা একছড়া, সন্দেশ পাঁচপোয়া, মিছা দখানা, পেতলের থালা একখানা, ঘটি একটা, ধনো একপোয়া-ওঃ ভুলে গিয়েচি, ধাপকের বাটি একট, আসন একটা বিশ্ববাস মশায় মন দিয়ে ফাদ শানে বললেন--আর সব নতুন দেবো, কিন্তু ও থালাঘটি কি তুনই দিতে হবে ? আপনার বাড়ী থেকে না হয় দিন, কিছ: দাম ধরে দিলে হয় না ? --তা হয়। তবে খ্যৎ না রাখাই ভালো। আপনি নতুনই দেবেন। -न् िठिंक दश्ष्ट्र पिन्-ि --সামনের আমাবস্যায় হবে, ও আর দিন ঠিক কি । বলেছি তো । দক্ষিণে লাগবে। টাকা । বিশ্ববাস মশায় অন্যুরোধের সরে বললেন-টােকা খরচের জন্যে আপত্তি নেই-যাতে তিটি আমার-ঠাকুর মশাই-যাতে সেরে ওঠে