পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


RR অশনি-সংকেত -ख्राद्ध किछ उभाश एन्शे ? --অজ্ঞে না । আমি বিদেশী লোক, ওখানে আর কি আয়ে থাকবে ? —ও গ্রামে কি ব্রাহ্মণের বাস বেশি ? নাকি অন্য অন্য জাতও আছে ? আপনি সঙ্গে দশকম ধরন না কেন ? এই ধরনে লক্ষীপজো মনসাপজে, যাঠীপ জোটুজো -ও-সব চলবে না। সেখানে পর্যন্ত আছে গ্রামে ৷ ব্ৰাহ্মণের গ্রাম-ওখানেই আপনি ভুল করেচেন-এই ! গোলমাল করবি তো একেবারে পিঠের তুলবো সব। ব্রাহ্মণের গ্রামে বসতে নেই কক্ষনো। ওতে পিসাের হয় না মশাই -কথাটা ঠিকই বলেচোন। আপনি বেশ আছেন, ডাব আনতে বললেন অমনি এসে হাজির । অমন না হোলে বাসের সখ । আমার আর কোনো আয় নেই। ওই :ে সাত টাকা ছাড়া। তবে ধরন কলাটা, বেগনটা মধ্যে মধ্যে ছাত্রেরা আনে । দগোপদ বািড়য্যে কথাবাতার ফাঁকে অন্যমনস্ক হয়ে কি ভাবতে লাগলো। প। তামাক সেজে যখন হাকো তার হাতে দেওয়া হোল, তখন বললে--একটা কথা ভাবচি --কি বলান ? --দ’জনে মিলে একটা আপার প্রাইমারি ইস্কুল গড়ে তুলি না কেন ? আপনি গােরট্রেনিং পাস ? -} | দগাপদ চিন্তাকুল ভাবে বললে-তাই তো । গােরট্রেনিং পাস না থাকলে হেড মা হতে পারবেন না যে ! বাইরে থেকে আবার কাউকে আনলে তাকে ভাগ দিতে হবে কি সে নিজের কোলে সব ঝোল টেনে নেবে । তাতে সবিধে হবে না-আমার ওখানে ভাল লাগচে না । সঙ্গী নেই, দটাে কথা কইবার মানষে নেই-ব্রাহ্মণ যা আছে, সব অশি চাষবাসই নিয়ে আছে। সংসার অনিত্য, আমি মশাই আবার একটু ধৰ্ম্মকথা, একটু আলোচনা বঙ্ড পছন্দ করি । গঙ্গাচরণ মনে মনে বললে-এই রে, খেয়েচে ! মাখে বললে-সে তো খব ভালো ব --আপনি আর আমি সমব্যবসায়ী। তাই আপনার কাছে এত কথা খালে বল, কিছ মনে করবেন না যেন ! আচ্ছা আজি উঠি । অনেকদরে যেতে হবে । -আবায় যখন এদিকে আসবেন, দেখা দেবেন। দয়া করে । -সে আর বলতে মশাই ? একদিন আমার পরিবারকে নিয়ে এসে আপনাদের বাড় আলাপ করিয়ে দেৰো । আচ্ছা আসি, নমস্কার গ্রামের বিশ্ববাস মশায়ের নীতিটি কাকতালীয় ভাবে সস্থ হয়ে উঠলো গঙ্গাচরণের শ সবন্ত্যয়নের পরে । এতে গঙ্গাচরণের পসার আরো বেড়ে গেল গ্রামের লোকেদের কা একদিন একজন লোক এসে গঙ্গাচরণকে বললে---আমাদের গাঁয়ে একবার যেতে হচ্ছে প:ি 伞T哥一 -এসো, বসে। কোথায় বাড়ী ? --কামদেবপাের, এখান থেকে তিন ক্লোশ । আপনার নাম শনে আসচি। সবাই বহু পণ্ডিত মশায় গণী লোক । আমাদের গাঁয়ের আশেপাশে বড় ওলাউঠোর ব্যায়রাম - চল আপনাকে যেয়ে আমাদের গাঁ বন্ধ করতে হবে ।